‘টাকার লোভে ইংলিশ ক্রিকেটাররা ভারতীয়দের জুতা চাটতেও রাজি’

ধর্ম আর বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্যের জেরে টালমাটাল ইংল্যান্ডের ক্রিকেট। নিষিদ্ধ হয়েছেন অলি রবিনসন। একই কারণে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড তদন্ত চালু রেখেছে জস বাটলার, ইয়ন মরগানদের বিপক্ষেও। ভারতীয় ক্রিকেটারদের লক্ষ্য করে সম্ভবত বর্ণবাদী মন্তব্য করেছিলেন এই দুজন। ইংলিশ অধিনায়ক আর তার ডেপুটির বিপক্ষে এই অভিযোগ প্রমাণিত হলে বড় শাস্তি পেতে পারেন এই দুজনও।

ইংলিশ ক্রিকেটারদের জাত-ধর্ম তথা বর্ণবাদ নিয়ে মন্তব্য করার ঘটনা অনেক পুরোনো। সাম্প্রতি যখন টালমাটাল ইংল্যান্ডের ক্রিকেট ঠিক তখনই ঝোপ বুঝে কোপ দাগালেন ভারতের সর্বকালীন ইতিহাসের অন্যতম সেরা সাবেক উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান ফারুখ ইঞ্জিনিয়ার। চড়া মন্তব্য করেছেন ব্রিটিশদের নিয়ে।

বর্ণবাদ নিয়ে বরাবরই ইংল্যান্ডের ক্রিকেটাররা কটাক্ষ করে সেটিই নতুন করে মনে করিয়েছেন ফারুখ। তবে এখন দিন বদলেছে। আইপিএলে দল পাওয়ার জন্য এখন ভারতের পা চাটতেও রাজি ইংলিশ ক্রিকেটাররা। এমনটিই মত এই সাবেক ক্রিকেটারের।

ল্যাঙ্কাশায়ারের হয়ে কাউন্টি খেলতে যাওয়ার সময় অনেকবার বর্ণবাদী মন্তব্য হজম করতে হয়েছে তাকে। খারাপ ইংরেজি বলার ধরন আগের গায়ের রং ভালো না হওয়ায় বহুবার ‘কুৎসিত’ মন্তব্য শুনতে হয়েছে তাকে। গায়ের রং খারাপ হলে তারা মানুষকে মানুষ ভাবে না বলেও মত তার।

এ বিষয়ে এক সাক্ষাতকারে ফারুখ ইঞ্জিনিয়ার বলেন, “যখন কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে প্রথম ইংল্যান্ডে গিয়েছিলাম, তখন সবাই বলত, ওকি ভারত থেকে এসেছে? ল্যাঙ্কাকাশায়ারে খেলার সময় দু-একবার এমন ঘটনার সম্মুখীন হই। আমার ব্যক্তিগত জীবন-যাপন নিয়ে নয়, তবে শুধুমাত্র ভারত থেকে যাওয়ায় কারণেই আমাকে নিয়ে এবং আমার ইংরেজি উচ্চারণ নিয়ে অনেক হাসি-ঠাট্টা হতো।”

তবে এখন সময় পাল্টেছে। অর্থের লোভে ইংল্যান্ড ভারতের জুতাও চাটতে পারে উল্লেখ করে ফারুখ আরো বলেন, “কয়েক বছর আগে পর্যন্তও তাদের কাছে আমরা ‘ব্লাডি (জঘন্য) ইন্ডিয়ান্স’ ছিলাম। তবে আইপিএল শুরু হওয়ার পর থেকে হঠাৎ তারা নিজেদের সুর বদলাতে শুরু করেছে। ভাবতেও অবাক লাগে, শুধুমাত্র টাকার জন্য তারা আমাদের জুতা চাটতেও রাজি!”

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment