কোপা আমেরিকা বয়কট নিয়ে কার কী অবস্থান?

ঘনিয়ে আসছে কোপা আমেরিকা শুরুর সময়। তবে দক্ষিণ আমেরিকার মহাদেশ সেরা ফুটবল টুর্নামেন্টটি আদৌ হবে কি না, তা নিয়ে রয়েছে ব্যাপক অনিশ্চয়তা। দেশে কোভিড মহামারীর নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে এর আয়োজন দেখতে চাইছেন না ব্রাজিলেরই অনেক ফুটবলার। টুর্নামেন্ট বয়কট করতে তারা অন্যান্য দেশের অধিনায়কদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে বলে গণমাধ্যমের খবর।

কোপা আমেরিকা আয়োজন নিয়ে দলগুলোর তারকা বা অধিনায়করা কী ভাবছেন, তা তুলে ধরা হয়েছে স্প্যানিশ ক্রীড়া পত্রিকা মার্কার এক প্রতিবেদনে।

কাসেমিরো, বিদ্রোহীদের মুখপাত্র

ব্রাজিল অধিনায়ক কোপা আমেরিকা আয়োজনের স্পষ্ট বিরোধী। একুয়েডরের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে না এসে এ বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেন তিনি। ওই ম্যাচের পর অবশ্য সংবাদ সম্মেলনে আসেন রিয়াল মাদ্রিদের এই মিডফিল্ডার। জানান, বুধবার প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের পর কোপা আমেরিকা নিয়ে তাদের অবস্থান সবার সামনে পরিষ্কার করবেন তারা। টুর্নামেন্টের বিষয়ে অন্য অধিনায়কদের অবস্থান জানতে তাদের সঙ্গে নাকি যোগাযোগ করেছেন কাসেমিরো ও নেইমার।

টুর্নামেন্ট খেলার বিপক্ষে কুয়াদরাদো
কোপা আমেরিকায় খেলার বিপক্ষে নিজেদের অবস্থান জানাতে দেরি করেনি কলম্বিয়া দল। কলম্বিয়ান অ্যাসোসিয়েশন অব প্রফেশনাল ফুটবলার্সের মাধ্যমে দেওয়া বিবৃতিতে দেশটির খেলোয়াড়রা ঝুঁকি নিয়ে টুর্নামেন্টটি আয়োজনের বিষয়ে তাদের উদ্বেগের কথা জানান। ওই বিবৃতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন দলটির ফরোয়ার্ড হুয়ান কুয়াদরাদো।

ব্রাজিল দলের সঙ্গে একমত উরুগুয়ে
উরুগুয়ের লুইস সুয়ারেস, এদিনসন কাভানি ও ফের্নান্দো মুসলেরা টুর্নামেন্ট আয়োজনের বিরোধিতা করেছেন প্রকাশ্যেই। তারকা ফরোয়ার্ড সুয়ারেস যেমন বলেছেন, “আগে স্বাস্থ্যের বিষয়ে অগ্রাধিকার দিতে হবে। আমি কোপা আমেরিকায় খেলার বিপক্ষে।”

মেসির মতামত জানার অপেক্ষা
অন্য অধিনায়করা যখন টুর্নামেন্ট আয়োজনের বিরোধিতায় আওয়াজ তুলছেন, সেখানে লিওনেল মেসির ক্ষেত্রে এখনও তেমনটা দেখা যায়নি। আর্জেন্টিনা অধিনায়ক বিষয়টি নিয়ে নীরব। তবে স্প্যানিশ পত্রিকা মুন্দো দেপোর্তিভো জানিয়েছে, ব্রাজিলের খেলোয়াড়দের মতো মেসির অবস্থানও একই।
ব্রাজিলের পাশে দাঁড়াতে পারে চিলি
একইরকম অবস্থান নিতে পারে চিলিও। বিশেষ করে, দলটির গোলরক্ষক ক্লাওদিও ব্রাভো বার্সেলোনায় থাকাকালীন নেইমার, সুয়ারেস ও মেসির সঙ্গে ড্রেসিংরুম ভাগাভাগি করেছেন। ২০১৫ সালে তারা একসঙ্গে জিতেছেন চ্যাম্পিয়ন্স লিগ।

বলিভিয়ার ভিন্ন অবস্থান
টুর্নামেন্ট নিয়ে বলিভিয়া অবশ্য ভিন্ন অবস্থান নিয়েছে। গত বুধবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টুর্নামেন্ট আয়োজনের পক্ষে নিজেদের সমর্থন জানায় তারা। তবে সামনে তাদের অবস্থান একই থাকবে কি-না, বা অন্য দেশগুলোর মতো তারাও বিপক্ষে অবস্থান নেবে কি-না, তা সময়ই বলে দেবে।
অন্যান্য দেশের অবস্থান
বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, নিজেদের পক্ষে অবস্থানের জন্য একুয়েডরের ফুটবলার এননের ভালেন্সিয়া ও দলটির অধিনায়ক আইরতোন প্রেসিয়াদোর সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন নেইমার। যদিও বিষয়টি এখনও প্রকাশ করা হয়নি।

কোপা আমেরিকার ১০৫ বছরের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দুই দেশের যৌথ আয়োজনে হওয়ার কথা ছিল এবারের আসর। কিন্তু কলম্বিয়ায় সরকারবিরোধী আন্দোলন এবং আর্জেন্টিনায় করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দেশ দুটি থেকে টুর্নামেন্টটি সরিয়ে নেওয়া হয়।

এরপর হুট করেই ব্রাজিলকে আয়োজক হিসেবে ঘোষণা করে দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল কনফেডারেশন (কনমেবল)। কিন্তু ব্রাজিলেও করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ভালো নয়। আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যায় তারা দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে এবং বিশ্বে দ্বিতীয়।
ফুটবল পাগল দেশটির জনসাধারণ কোপার আয়োজক হওয়ার ব্যাপারটাকে ভালোভাবে নেয়নি। ফাইনালের ভেন্যু হিসেবে ঘোষিত বিখ্যাত মারাকানা স্টেডিয়ামের বাইরে ব্যানার ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে, ‘কোপা আমেরিকা নয়, করোনাভাইরাসের টিকা চাই।’

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment