জাতীয় দলে সুযোগ হবে না জেনে চ্যালেঞ্জ নেওয়ার তাড়না নেই মাশরাফির

বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম বড় তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা। ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর আর লাল-সবুজের জার্সিতে দেখা যায়নি তাকে। সর্বশেষ বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে জেমকন খুলনার হয়ে মাঠে নেমেছিলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। এরপর দীর্ঘ সময় ধরেই মাঠের বাইরে সাবেক টাইগার অধিনায়ক।

রাত পোহালেই পর্দা উঠছে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের। সেই টুর্নামেন্টে গত মৌসুমের দল শেখ জামালের হয়েই মাঠে ফেরার কথা ছিল মাশরাফির। তবে ভক্তদের অপেক্ষার পালা আরও দীর্ঘ হচ্ছে। টুর্নামেন্টটির শুরুর অংশে থাকছেন না এই তারকা ক্রিকেটার।

প্রথম দিকে মাশরাফির না থাকার গুঞ্জনটা আগেই ছিল। এবার ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ নিজেই তা নিশ্চিত করলেন। দল খুব করে চাইলেও প্রস্তুতির অভাবে টুর্নামেন্টের শুরু দিকে খেলবেন না তিনি। মুঠোফোনে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মাশরাফি বলেছেন,

“একটা সময় ছিল, যখন টানা খেলার মধ্যে থাকতাম। কিংবা বিরতিতে থাকলেও লীগ শুরুর বেশ আগে জানতে পেরে প্রস্তুতি নিতাম। এখন পরিস্থিতি অন্যরকম। অনেকটা হুট করেই জানতে পেরেছি, খেলা শুরু হচ্ছে। এরপর যেটুকু সময় ছিল, প্রস্তুতির সুযোগ হয়ে ওঠেনি নানা ব্যস্ততায়। একেবারেই প্রস্তুতি ছাড়া লীগ খেলতে চাইনি।”

তবু মাঠে নামতেন সাবেক টাইগার কাপ্তান, যদি এই টুর্নামেন্টে ভালো করলে জাতীয় দলে ডাক পাবার সুযোগ থাকতো। কিন্তু বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে শেষ দিকে এসে বল হাতে বেশ ভালো করেও জাতীয় দলের দরজা খোলেনি তার জন্য। তাই এই মূহুর্তে জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকার মানসিক ধকল নিতে চান না মাশরাফি।

“বায়ো-বাবলের ব্যাপারটিও আছে। এখনকার অবস্থায় ২০-২২ দিন হোটেলে বাবলে থাকার মানসিকতায় আমি নেই। কারণ, তাড়না তো খুব বেশি নেই। যদি জানতাম, এখানে ভালো করলে জাতীয় দলে আমার সুযোগ থাকবে বা অন্তত বিবেচনাও করতে পারে, তাহলে এই চ্যালেঞ্জটা নিয়ে হোটেলে উঠতাম, চেষ্টা করতাম পারফর্ম করার। কিন্তু বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টিতে ৫ উইকেট নেওয়ার পরও নেওয়া হয়নি দলে। এই লিগে খুব ভালো করলেও লাভ নেই।”

তবে আসরের শেষ দিকে খেলার ইচ্ছা আছে তার। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, “লম্বা সময় বাবলে থাকতে চাই না। দ্বিতীয় রাউন্ডে বা পরের দিকে খেলার ভাবনা আছে। যদি এর মধ্যে প্রস্তুতি নিতে পারি, তাহলে হয়তো শেষ ৭-১০ দিন খেলতে পারি।”

উল্লেখ্য, গেল বছর মাত্র এক রাউন্ড খেলা হবার পর করোনা প্রাদুর্ভাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেছিলো ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ(ডিপিএল)। এরপর করোনা পরিস্থিতির আর উন্নতি না হওয়ায় মাঠে গড়ায়নি ডিপিএল। তবে শেষ পর্যন্ত ৩১শে থেকে আবারও মাঠে ফিরছে টুর্নামেন্টটি।

দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় পর শুরু হতে যাওয়া ডিপিএলের এবারের আসরটি আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে মাথায় রেখে অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে।
শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের স্কোয়াডঃ

মাশরাফি বিন মর্তুজা, নুরুল হাসান সোহান, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ আশরাফুল, নাসির হোসেন, জিয়াউর রহমান, তানভির হায়দার, মোহাম্মদ ইলিয়াস, সোহরাওয়ার্দী শুভ, এবাদত হোসেন চৌধুরি, সালাউদ্দীন শাকিল, মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি, ফারদিন হাসান অনি, এনামুল হক এনাম, আব্দুল হালিম, মেহরাব হোসেন জোশি, সাকিল আলি।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment