আইপিএল থেকে সাকিবের জন্য নতুন বার্তা পাঠালো কলকাতা

সাকিব আল হাসান। শুধু একটা সাধারণ নাম ভাবলে হয়তো কিছুটা ভুল ‘হতে পারে। ক্রিকেট ভক্তদের কাছে অবশ্য শুধু বিশেষ কিছুই নয়, সাকিব আল হাসান নামটা যেন হৃদয়ের স্পন্দন। লাল-সবুজ জার্সি গায়ে বিশ্বের সামনে নিজ দেশের পতাকা’টা যে সব সময়ই তুলে ধরেন তিনি।

বাংলাদেয়াহ জাতীয় দলের হয়ে ইতোমধ্যেই ১৫ বছরের ক্যারিয়ার পার করছেন সাকিব। এই দীর্ঘ পথ চলায় গড়ে গেছেন একের পর এক রেকর্ড। বিশ্বের সব তারকাদের ছাপিয়ে নিজেই হয়ে উঠেছেন এক মহাতারকা।

সাকিব আল হাসান বাংলাদেশ দলের হয়ে সাদা পোশাক গায়ে জড়িয়েছিলেন আজ থেকে ১৪ বছর আগে। ২০০৭ সালের ১৮ই মে ভারতের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে অ’ভিষেক হয় সাকিবের। বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারের অ’ভিষেক হবার পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডারের তালিকায় নিজের নাম ধরে রেখেছেন দীর্ঘ সময়।

শুধু টেস্ট ক্রিকেটই নয়, ওয়ানডে কিংবা টি-২০ ফরম্যাটেও সেরা অলরাউন্ডারের খেতাব নিজের দখলে নিয়েছেন তিনি। ফলে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগেও সুযোগ পেয়েছেন নিয়মিত। কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয় বেশ কয়েকটি আসরে খেলার পর সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়েও মাঠ মাতিয়েছিলেন তিনি। তবে ২০২১ আইপিএল আসরের নিলাম থেকে সাকিবকে আবারও দলে নিয়েছিল কলকাতা।

সাকিব আল হাসানের টেস্ট ক্যারিয়ারের ১৪তম বছর পার করার পর কলকাতা নাইট রাইডার্স তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে সাকিবকে উৎসর্গ করে একটি পোস্ট করেছে। যেখানে সাকিবের ছবি সংযুক্ত করে তার টেস্ট ক্যারিয়ারের রান ও উইকেটসংখ্যা উল্লেখ করে ক্যাপশনে। সেই সাথে ক্যাপশনে লেখা হয়, “এখনও অনেক বাকি। ২০০৭ সালের এই দিনে (১৮ই মে) বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট অ’ভিষেক হয়েছিল সাকিব আল হাসানের”।

এই টাইগার অলরাউন্ডার দেশের হয়ে সাদা পোশাকের ফরম্যাটে এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৫৭টি ম্যাচ। ব্যাট হাতে ১০৬ ইনিংসে মাঠে নেমে তিনি নিজের নামের পাশে জমা করেছেন ৩৯৩০ রান। যেখানে রয়েছে ৫টি শতক ও ১৫টি অর্ধশতক। সাকিবের সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি হচ্ছে ২১৭ রানের।

বল হাতে ৫৭ টেস্টের মধ্যে ৯৬ ইনিংসে দেখা গেছে সাকিবকে। ২১০ উইকেট নেয়া সাকিবের এক ম্যাচে সর্বোচ্চ উইকেটসংখ্যা হচ্ছে ১২৪ রানে ১০টি।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment