তামিমের সমালোচকদের উপযুক্ত জবাব দিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ

বছর কয়েক হলো খেলার ধরণ বদলে ফেলেছেন তামিম। আগের সেই আগ্রাসী তামিমকে এখন আর দেখা যায় না। এখনকার তামিম রান তোলার চেয়ে উইকেটে টিকে থাকাটাই শ্রেয়তর মনে করেন।

কিন্তু ম্যাচ শেষে দেখা যায় রানের সঙ্গে বলের বিস্তর ফারাক। এর ফলে দেশসেরা এই ওপেনারের স্ট্রাইক রেট নেমে এসেছে ৭৮.৩৫ এ।
টি-টোয়েন্টিতে তা ১১৬.৯৬। অথচ ৭ হাজার ৪৫২ রান নিয়ে ওয়ানেড ক্রিকেটে দেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিম।
আর টি-টোয়েন্টিতে তার ১ হাজার ৭৫৮ রানের ধারের কাছেই নেই কেউ। এই ফরম্যাটে দেশের একমাত্র সেঞ্চুরিটাও তামিমের। ঈদ স্পেশাল লাইভ অনুষ্ঠানে এসেছিলেন মাহমুদউল্লাহ।

সেখানে তিনি তামিমের স্টাইক রেট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আমি এখানে দুইটা জিনিস বলি যারা এ ধরণের প্রশ্ন করে যেমন, তামিমের সামর্থ্য বা তার প্রাপ্তি আমার মনে হয় তারা ‘বোকা’। তাদের এ ধরণের প্রশ্ন করা উচিত না।

কারণ কয়েক বছর ধরে ও বাংলাদেশ ক্রিকেটকে যা দিয়ে আসছে এবং ওর পরিসংখ্যানও বলে সে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা একজন ব্যাটসম্যান। তাই ওর স্ট্রাইক রেট বা এসব নিয়ে বলাটাও ঠিক না।’

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলে একজন বিদ্ধংসী ক্রিকেটারের চাহিদা অনেক দিনের। কিন্তু না থাকায় পাওয়ার প্লে ধরেই খেলতে হয় টাইগারদের। যেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হয় উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিমকে।

মাহমুদউল্লাহও বিশ্বাস করেন, নিজের কাজ সম্পর্কে ভালো জানা তামিমের। তাই স্ট্রাইক রেট নিয়ে প্রশ্ন তাকে বিচলিত করে না। এ প্রসঙ্গে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘আমার মনে হয় যে আমাদের টি-টোয়েন্টি খেলার ধরণটাও বুঝতে হবে।
কারণ আমি যেটা আগে বললাম গেইল-পোলার্ড নেই বা ওরকম সিক্স মারার মতো ক্রিকেটার নেই আমাদের। তো আমাদের শুরু থেকেই পাওয়ার প্লে ব্যবহার করতে হবে। প্রথম ৬ ওভার কাজে লাগাতে হবে। এরপর ওখান থেকে খেলা ধরতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘তারপর ঐ ধারা বজায় রেখে আমাদের খেলাটা শেষ করতে হবে। তো এই জিনিসটা আমার মতে হয় বোঝাটা গুরুত্বপূর্ণ। আমি আশা করি এই সম্পর্কে তামিম খুব ভালোই জানে। কারণ সে তার খেলাটা অনেক ভালো বোঝে। আমার মনে হয় না স্ট্রাইক রেট নিয়ে কোন কথা ওকে বিচলিত করে।’

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment