পাঁচজন খেলোয়াড় যারা আইপিএল ২০২২ নিলামে সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হতে পারেনপাঁচজন খেলোয়াড় যারা আইপিএল ২০২২ নিলামে সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হতে পারেন

টুর্নামেন্টের মেগা নিলাম হওয়ার আগে থেকেই আইপিএল ২০২২ সালে অনেক পরিবর্তন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আরও দুটি নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি আইপিএল এ যোগদান করতে চলেছে ২০২২ সালে। মেগা-নিলামের সময়, একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি কেবল পাঁচজন খেলোয়াড়কে ধরে রাখতে পারে।

মেগা নিলামের নিয়ম অনুসারে একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি কেবল দুইজন বিদেশী খেলোয়াড় এবং তিনজন ভারতীয় খেলোয়াড় ধরে রাখতে পারে। একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি তিনটি রিটেনশন এবং দুটি আরটিএম (রাইট টু ম্যাচ) বা দুটি রিটেনশন এবং তিনটি আরটিএম ব্যবহার করতে পারে। ফলস্বরূপ, অনেক খেলোয়াড় তাদের বর্তমান খেলোয়াড়দের থেকে অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিতে চলে যাবে। আইপিএল নিলাম টাকা সমৃদ্ধ ইভেন্ট যেখানে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি তাদের প্রিয় খেলোয়াড়দের কেনার জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করে। যেহেতু আইপিএল ২০২২ একটি মেগা-অ্যাকশন হবে, তাই অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় কেনার জন্য উপলব্ধ থাকবে এবং ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি তাদের কেনার জন্য বিপুল পরিমাণ ব্যয় করা থেকে বিরত থাকবে না। আসুন দেখেনি, আইপিএল ২০২২ সালের নিলামে পাঁচজন ব্যয়বহুল ক্রিকেটার কারা হতে পারেন-

ঋষভ পন্থ: আইপিএল ২০২১ সালে দিল্লি ক্যাপিটালসের অধিনায়ক হিসাবে দুর্দান্ত কাজ করছিলেন ঋষভ পন্থ। তাঁর নেতৃত্বে টুর্নামেন্ট স্থগিত হওয়ার আগে দিল্লি ক্যাপিটালস আটটির মধ্যে ছয়টি ম্যাচ জিতেছিল এবং আইপিএল ২০২১ পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ স্থানে রয়েছে। ঋষভ পন্থ এমন একজন খেলোয়াড় যিনি আইপিএল ২০২২ নিলামে সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হতে পারেন। যেহেতু দিল্লি ক্যাপিটালস আইপিএল ২০২২ নিলামের সময় কেবল তিনজন ভারতীয় খেলোয়াড়কে ধরে রাখতে পারে, তাই তারা নিয়মিত অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ারের সাথে প্রথম পছন্দ হিসাবে যেতে পারেন।

স্যাম করণ: স্যাম করণ আইপিএল ২০২২ তে চেন্নাই সুপার কিংসের অংশ। তবে আইপিএল ২০২২ তে চেন্নাই সুপার কিংস দুইজন বিদেশী খেলোয়াড়কেই ধরে রাখতে পারবে এবং তারা মইন আলী এবং ফাফ দু প্লেসিসের সাথে যেতে পারে। সিএসকে মইন আলীকে ৭ কোটি টাকায় কিনেছিল। আইপিএল ২০২১ এ তিন নম্বরে তিনি দুর্দান্তভাবে ব্যাট করেছেন। তাই সিএসকে হয়তো ২০২২ সালের আইপিএলে ইংলিশ অলরাউন্ডারকে হারাতে চান না। ফাফ দু প্লেসিস আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের তারকা ব্যাটসম্যান। ২০২১ সালে যিনি সাত ম্যাচে ৪ টি অর্ধশতক সহ ৩২০ রান করেছিলেন। সুতরাং, সিএসকে হয়ত ফাফ দু প্লেসিসকে রেখে স্যাম করণকে হারাতে পারে। এই জাতীয় পরিস্থিতিতে, স্যাম করণ আইপিএল ২০২২ নিলামে অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির নজরে থাকবে। স্যাম কুরান একজন তরুণ খেলোয়াড় এবং প্রতিভা রয়েছে।

জোফ্রা আর্চার: কনুইয়ে চোটের কারণে টুর্নামেন্ট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে জোফ্রা আর্চার আইপিএল ২০২১ এ রাজস্থান রয়্যালসের অংশ ছিলেন না। আইপিএল ২০২২ নিলামে রাজস্থান রয়্যালস বেন স্টোকস এবং ক্রিস মরিসকে দলে তাদের দুই বিদেশী খেলোয়াড় হিসাবে ধরে রাখতে পারে। বেন স্টোকস অসাধারণ অলরাউন্ডার এবং মরিস আইপিএল ২০২১ সালে তার পারফরম্যান্স এ মুগ্ধ করছেন। মরিস আইপিএল ২০২১ -তে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী ছিলেন। সাত ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়ে এবং তিনি রাজস্থান রয়্যালসের জয় দিল্লির বিপক্ষেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলোই এমন ক্ষেত্রে রাজস্থান রয়্যালস জোফ্রা আর্চারকে মুক্তি দিতে পারে। ফলস্বরূপ অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি তাদের স্কোয়াডে আর্চারকে কিনতে কোনও প্রকার সুযোগ ছাড়বে না। সুতরাং, আর্চার আইপিএল ২০২২ নিলামে সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হতে পারেন।

ক্রিস মরিস: বেন স্টোকস এবং জোফ্রা আর্চারকে তাদের দুই বিদেশী খেলোয়াড় হিসাবে ধরে রেখে রাজস্থান রয়্যালসের এগিয়ে যাওয়ার আরও একটি সম্ভাবনা রয়েছে। ফলস্বরূপ, ফ্র্যাঞ্চাইজিকে ক্রিস মরিসকে ছাড়তে হতে হবে। দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার মরিস আইপিএল ২০২১ -তে ভালো খেলার পরে বেশ আলোড়ন পেয়েছেন। তাছাড়া আইপিএল ২০২১ মিনি-নিলামের সবচেয়ে ব্যয় বহুল খেলোয়াড় ছিলেন মরিস, ১৬.২৫ কোটি টাকা। ফলস্বরূপ, মরিস আবারও আইপিএল ২০২২ নিলামের সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হতে পারেন।

ডেভিড ওয়ার্নার: আইপিএল ২০২২ নিলামে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের কাছে বড় সুযোগ রয়েছে ডেভিড ওয়ার্নারকে ছেড়ে দেওয়ার। আইপিএল ২০২১ তে কার্যকরভাবে নেতৃত্ব দিতে ডেভিড ওয়ার্নারের অপারগতা বা মনিশ পান্ডেকে বাদ দেওয়ার জন্য নির্বাচকদের অভিযোগ, ওয়ার্নারকে আইপিএল ২০২১-তে ফ্র্যাঞ্চাইজির ক্রোধের মুখোমুখি হতে হয়েছিল। ওয়ার্নারকে ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের মাঝেই অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছিলেন। নতুন অধিনায়ক হিসাবে মনোনীত হয়েছিল কেন উইলিয়ামসন। পরের খেলায় ফিট থাকা সত্ত্বেও ওয়ার্নারকেও প্লেয়িং ইলেভেন থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল।

সুতরাং, সানরাইজার্স হায়দরাবাদ আইপিএল ২০২২ সালে ডেভিড ওয়ার্নারকে মুক্তি দিতে পারে এবং কেন উইলিয়ামসন ও রশিদ খানকে দুই বিদেশী খেলোয়াড় হিসাবে ধরে রাখতে পারে। ডেভিড ওয়ার্নার ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের সেরা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে অন্যতম। অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি ডেভিড ওয়ার্নারকে তাদের দলে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রস্তুত থাকবে এবং তারা অস্ট্রেলিয়ান খেলোয়াড়কে কেনার জন্য বিপুল পরিমাণ ব্যয় করতে দ্বিধা করবে না।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment