20230504 144615

২০২৩ ব্যালন ডি’অর জিতার দৌড়ে মেসি-আর্লিং হালান্ড

শিরোপা ফুটবল বিশ্বকাপ জয় করেছেন।

চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত ব্যালন ডি’অরের পাওয়ার র‌্যাঙ্কিংয়ে মেসি ৩৬ গোল ও ২৩টি অ্যাসিস্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন। তার ব্যালন ডি’অর জয়ে যে বিষয়টি এগিয়ে রাখছে তা হলো ফুটবল বিশ্বকাপ। পুরো বিশ্বকাপে ৭ ম্যাচ থেকে করেছেন ৭ গোল সেই সঙ্গে করিয়েছেন ৩ গোল। আর ফাইনালের ম্যাচ সেরাসহ বিশ্ব আসরে পেয়েছেন সর্বোচ্চ ৫ বার ম্যাচ সেরার পুরস্কার। যা তাকে অষ্টম ব্যালন ডি’অরের জয়ের পথে অনেকটা এগিয়ে রাখছে। এছাড়াও তার ঝুলিতে রয়েছে চলতি মৌসুমে ট্রফি দেস চ্যাম্পিয়ন শিরোপা।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা ম্যানসিটির আর্লিং হালান্ডও আছেন চলতি মৌসুমে দুর্দান্ত ফর্মে। তিনি এখন পর্যন্ত ৪৮ গোলের পাশাপাশি করেছেন ৬ অ্যাসিস্ট। তবে তার দুঃখ বিশ্বকাপ মঞ্চে তার দেশ নরওয়ের সুযোগ না পাওয়া। তাই তো হালান্ড চলে এসেছেন তালিকার দ্বিতীয় স্থানে। যেখানে আগে ছিলেন এমবাপ্পে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা জিতলে ব্যালনের ট্রফি তার হাতে যাবে এটা বলা যায় একবাক্যে।

তৃতীয় স্থানে থাকা কিলিয়ান এমবাপ্পে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত ৪৩ গোল ও ১২টি অ্যাসিস্ট করেছেন। ফুটবল বিশ্বকাপের ফাইনাল খেললেও শিরোপা ঘরে তুলতে না ব্যর্থ তিনি। তবে ফাইনালে হ্যাটট্রিকসহ পুরো টুর্নামেন্টে ৭ ম্যাচ থেকে ৮ গোল করার পাশাপাশি সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন ২ গোল। আর ম্যাচ সেরা হয়েছেন ৪টিতে।

চতুর্থ স্থানে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের ব্রাজিলিয়ান তরুণ সেনসেশন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত ২২ গোল ও ২০ অ্যাসিস্ট করেছেন। জিতেছেন ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ ও উয়েফা সুপার কাপের শিরোপা। তার দল রিয়াল মাদ্রিদ পৌঁছে গেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে। যেখানে প্রতিপক্ষ ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি।

পঞ্চম স্থানে জায়গা করে নিয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের তারকা করিম বেনজেমা। তিনি একলাফে ১৩ থেকে পাঁচে এসে ঢুকেছেন। চলতি মৌসুমে করেছে ২৬টি গোল। কপাল খারাপ থাকায় খেলতে পারেননি কাতার বিশ্বকাপ। পরে অবশ্য জাতীয় দল থেকেই অবসরে চলে যান। ইতোমধ্যে চলতি বছরে রিয়ালের হয়ে জিতেছেন ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ ও উয়েফা সুপার কাপের শিরোপা।

এই পাঁচজন ছাড়াও শীর্ষ ২০ এ রয়েছেন যারা

ভিক্টর ওসিমেন (নাপোলি), কাভিচা কোয়ারাটশেলিয়া (নাপোলি), কেভিন ডি ব্রুইনা (ম্যানচেস্টার সিটি), মার্কাস রাশফোর্ড (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), রবার্ট লেভানদোভস্কি (বার্সেলোনা), কাসেমিরো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), ব্রুনো ফার্নান্দেজ (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), বুকায়ো সাকা (আর্সেনাল), নিকোলো বোরেল্লা (ইন্টার মিলান), জুলিয়ান আলভারেজ (ম্যানচেস্টার সিটি), জামাল মুসিয়ালা (বায়ার্ন মিউনিখ), জুড বেলিংহাম (বরুশিয়া ডর্টমুন্ড), মাইক মেইগনান (এসি মিলান), মার্টিন ওডেগার্ড (আর্সেনাল) ও জ্যাক গ্রিলিশ (ম্যানচেস্টার সিটি)।