images 2023 02 21T170823.268

মেসি ও দি মারিয়ার ২০২৬ বিশ্বকাপ খেলবে কিনা চুরান্ত সিদ্ধান্ত জানালো কোচ স্কালনী

সদ্য শেষ হয়ে যাওয়া ২০২২ কাতার বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল আর্জেন্টিনা। দীর্ঘ ৩৬ বছর পরে বিশ্বকাপ জয়ে স্বাদ পায় তারা। মেসি ও দি মারিয়া এই দুই তারকা এই দলে দারুন খেলেছিল বিশ্বকাপে। এই দুই তারকার বয়শ এখন ৩৫ বছর। চার বছর পরের বিশ্বকাপ নিয়ে দুজনেই আছেন দোটানায়।

আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওলেন মেসি যেমন নিশ্চিত করে বলেননি খেলবেন কিনা। আর দি মারিয়া কদিন আগে বলেন, অত দূরের স্বপ্ন দেখছেন না মারিয়া। এ বিষয়ে নিজের অবস্থান এবার পরিষ্কার করলেন লিওনেল স্কালোনি। ২০২৬ বিশ্বকাপে এই দুই তারকার খেলা, না খেলার সিদ্ধান্ত আর্জেন্টিনা কোচ ছেড়ে দিলেন তাদের ওপরই।

আগামী ২০২৬ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে মেক্সিকো, কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে। স্কালোনির হাত ধরেই ওই আসরে আর্জেন্টিনা নোঙর ফেলবে মুকুট ধরে রাখার লক্ষ্য নিয়ে।

গত ২০২২ সালের ডিসেম্বরে লুসাইল স্টেডিয়ামের ফাইনালে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে ১৯৮৬ সালের পর প্রথম বিশ্বকাপের স্বাদ পায় আর্জেন্টিনা, সব মিলিয়ে তৃতীয়। এরপর থেকে স্কালোনি, মেসি ও দি মারিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে চলছে নানা মুখী আলোচনা।

চার বছর পরের বিশ্বকাপের সময় মেসি ও দি মারিয়ার দুজনের বয়স হবে চল্লিশের কাছাকাছি। ফুটবলের দৃষ্টিকোণ থেকে ওই বয়সে দুজনের খেলা অসম্ভব না হলেও খুব কঠিন। কাতার বিশ্বকাপ জয়ের পর মেসিও তাই পরের আসরে খেলার ব্যাপারে নিশ্চিত করে কিছু বলেননি।

কদিন আগে দি মারিয়াও জানান, ২০২৬ বিশ্বকাপে নিজেকে না দেখার কথা। বরং আগামী বছরের কোপা আমেরিকা খেলতে পারলে তিনি‍খুশি হবেন বলে জানান এই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার। তবে পরের বিশ্বকাপে মেসিকে খেলতেই হবে, এমন দাবিও তোলেন রিয়াল মাদ্রিদের এই সাবেক তারকা।

এদিকে আর্জেন্টিনাকে ১৯৮৬ বিশ্বকাপের পর আরেকটি শিরোপা এনে দেওয়া কোচ স্কালোনির সঙ্গে দেশটির ফুটবল ফেডারেশনের নতুন চুক্তির বিষয়টিও ঝুলে আছে অনেক দিন। টিওয়াইসি স্পোর্টস অবশ্য জানিয়েছে, দুই পক্ষের চুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে। অর্থাৎ আলবিসেলেস্তেদের মুকুট ধরে রাখার মিশনে ডাগআউটে থাকবেন স্কালোনি।

মেসি ও দি মারিয়া মুকুট ধরে রাখার মিশনে স্কালোনির সঙ্গী হবেন কিনা, সে প্রশ্নের উত্তর তাই দিতে হয়েছে স্কালোনিকেই। সোমবার সেরি আয় বর্ষসেরা কোচের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্কালোনি। সেখানেই গুরুত্বপূর্ণ এ সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার তিনি ছেড়ে দিলেন দুই খেলোয়াড়ের ওপর।

“পরের বিশ্বকাপে খেলার বিষয়ে লিওকে (মেসি) সিদ্ধান্ত নিতে হবে। যদি তার শরীর ঠিকঠাক সাড়া দেয়, তাহলে আমার দিক থেকে বলব, সে সেখানে থাকবে।”

“মেসিকে নিয়ে যে কথা বলেছি, একই কথা দি মারিয়ার বেলায়ও প্রযোজ্য। যতক্ষণ তার শরীর সইতে পারবে, তাকে সবসময় ডাকা হবে।”

কাতার বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনাকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি আক্রমণভাগেও উজ্জ্বল ছিলেন মেসি। সাত গোল করে প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় হয়েছিলেন এই মহাতারকা।

মরুভূমির বিশ্বকাপে আক্রমণের সুর বেঁধে দেওয়ার পাশাপাশি দি মারিয়া লুসাইলের ফাইনালে করেছিলেন এক গোল।

বিশ্বকাপের পর আর্জেন্টিনা আন্তর্জাতিক ফুটবলে পা রাখবে আগামী মার্চে। পানামা ও সুরিনামের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নতুন শুরু করবেন কোচ স্কালোনিও।