সিলেটকে হারিয়ে চতুর্থ শিরোপা জিতলো কুমিল্লা

InCollage 20230216 233411771 e1rmvFma4K

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ইতিহাসে সর্বোচ্চ শিরোপা জয়ী দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ঘরে তুলল নিজেদের চতুর্থ শিরোপা। টুর্নামেন্টের এবারের আসরের ফাইনালে মাশরাফি বিন মতুর্জার সিলেট স্ট্রাইকার্সকে হারিয়ে শেষ হাসিটা হেসেছে ইমরুল কায়েসের দল। একই সঙ্গে ফাইনালে না হারার রেকর্ড অক্ষুণ্ণও রেখেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে সিলেটকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে কুমিল্লা। ৫২ বলে ৭৯ রান করে কুমিল্লার জয়ের নায়ক জনসন চার্লস। আগে ব্যাট করে কুমিল্লাকে ১৭৬ রানের লক্ষ্য দেয় সিলেট।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা দারুণ হয় সিলেটের। প্রথম ওভারেই দলটির স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ১৮ রান। তবে পরের ওভারের প্রথম বলেই আউট হন সিলেটের তারকা ব্যাটার তৌহিদ হৃদয়। তানভীর ইসলামের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেন এই ডানহাতি। এরপর উইকেটে আসেন অধিনায়ক মাশরাফি। তবে আজকের ফাইনালে হাসে নি নড়াইল এক্সপ্রেসের ব্যাট। চার বল খেলে মাত্র ১ রান করেন তিনি।

মাশরাফির ফেরার পর ম্যাচের হাল ধরেন শান্ত ও মুশফিক। এই দুইজন মিলে সিলেটের রানের খাতা সমৃদ্ধ করতে থাকেন। এরমধ্যেই ৩৮ বলে অর্ধশতক তুলে নেন শান্ত। সমান তালে ব্যাট করতে থাকেন মুশফিকও। এই দুই ব্যাটারের উপর ভর করেই বড় সংগ্রহের পথে এগোতে থাকে এবারের বিপিএলে শুরু থেকেই চমক দেখিয়ে আসা সিলেট স্ট্রাইকার্স।

দারুণ খেলতে থাকা নাজমুল শান্ত’র ব্যাটিং তান্ডব থামে ইনিংসের ১২.২ ওভারে। মঈন আলীর বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৪৫ বলে ৬৪ রান করেন এখন পর্যন্ত এবারের আসরের সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহকের শীর্ষে থাকা শান্ত। এই বাঁহাতি ফেরার পর দ্রুত উইকেট হারাতে থাকে সিলেট। তবে উইকেটের এক প্রান্ত আগলে ব্যাট করতে থাকেন মুশি। তুলে নেন অর্ধশতকও।

সবশেষ ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’ এর ব্যাটে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে স্কোরবোর্ডে ১৭৫ রান তুলতে সক্ষম হয় সিলেট স্ট্রাইকার্স। তিন ছয় ও পাঁচ চারের মারে ৪৮ বলে ৭৪ রান করে অপরাজিত থাকেন মুশি।

কুমিল্লার হয়ে সর্বোচ্চ দুইটি উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান। একটি করে উইকেট নেন আন্দ্রে রাসেল, তানভীর ইসলাম, সুনীল নারিন ও মঈন আলী।

এদিকে সিলেটের দেয়া ১৭৬ রান তাড়ায় নেমে ঝড়ো শুরু করে কুমিল্লা। কিন্তু থিতু হতে পারেননি ওপেনার সুনীল নারিন। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে ৫ বলে ফেরেন ১০ রান করে। পরের ওভারে আউট হন অধিনায়ক ইমরুল। ৩৪ রানে ২ উইকেট হারালেও পাওয়ার প্লেতে ৪৯ রান তোলে কুমিল্লা। তৃতীয় উইকেটে চার্লসের সঙ্গে ৫৭ বলে ৭০ রানের জুটি গড়ার পথে ফিফটি তুলে নেন লিটন। থামেন ৩৯ বলে ৫৫ রানে। যেখানে ৭টি চার ও ১টি ছক্কা হাঁকান এই ওপেনার।

লিটনের আউটের পর মঈন আলীকে একপাশে রেখে তাণ্ডব চালান চার্লস। ৪১ বলে অর্ধশতক করার পর তানজিম হাসান সাকিব, রুবেল হোসেনদের ওপর আরও চড়াও হন। তাতে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় সিলেট। শেষ ২ ওভারে কুমিল্লার জয়ের জন্য ২১ রান প্রয়োজন পড়লে ৪ বল হাতে রেখে সমীকরণ মিলিয়ে শিরোপা নিশ্চিত করে তারা। ৭৪ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটিতে চার্লস ৫২ বলে ৭৯ ও মঈন ১৭ বলে ২৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

You May Also Like