কলকাতার পরবর্তী ম্যাচ চেন্নাইয়ের বিপক্ষে সাকিবকে বসিয়ে রাখা হবে : কোচ ম্যাককালাম

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএল-এ এখন পর্যন্ত কলকাতা নাইট রাইডার্স-এর হয়ে তিন ম্যাচের মধ্যে তিন ম্যাচেই একাদশে সুযোগ পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। তবে একাদশে সুযোগ পেলেও আলো ছড়াতে পারেনি সাকিব আল হাসান। টুর্ণামেন্টে এখন পর্যন্ত বল হাতে তিনি নিয়েছেন মাত্র দুটি উইকেট। আর ব্যাট হাতে তিনি করেছেন মাত্র ৩৮ রান।

সাকিবের এমন পারফরম্যান্সে এখনো পর্যন্ত সন্তুষ্ট হতে পারেননি দলের প্রধান কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। তাই পরবর্তী ম্যাচে একাদশে পরিবর্তন আনার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। কলকাতার পরবর্তী ম্যাচের চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে একাদশ থেকে জায়গা হারাতে পারেন সাকিব আল হাসান।

গতকাল রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে প্রথমে দুই ওভারে ২৪ রান সাকিব আল হাসান। এরপর আর তাকে বোলিংয়েই আনেননি ইয়ন মরগান। পরবর্তীতে ব্যাটিংয়ে নেমে যথেষ্ট সুযোগ পেলেও আলো ছড়াতে পারেনি সাকিব আল হাসান। ২০৫ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ২৫ বলে ২৬ রান করে আউট হন সাকিব।

যার কারণে প্রশ্ন উঠেছে সাকিব আল হাসানের ব্যাটিং নিয়ে। গতকাল কলকাতার প্রধান করছে জানিয়েছেন ম্যাচ খেলার মত ফিট না থাকার কারণে প্রথম কয়েকটি ম্যাচ খেলতে পারেনি সুনীল নারায়ন। সুনীল নারায়ন কে নিয়ে ব্র্যান্ডন ম্যাককালাম বলেন, “টুর্নামেন্ট শুরুর আগে তার একটু চোট ছিল।

“ গতকালের ম্যাচের আগেও সে আমাদের বিবেচনায় ছিল। তবে আমরা সাকিবকেই বেছে নিয়েছে কারণ তার ব্যাটিং আমাদের কাজে দিবে। তবে মুম্বাইয়ের অন্যরকম উইকেটের জন্য আমাদের নতুন কাউকে দরকার। আমরা সম্ভবত পরবর্তী ম্যাচে একটি বা দুটি পরিবর্তন করতে পারি”। আগামী ২১ এপ্রিল চেন্নাইয়ের বিপক্ষে চতুর্থ ম্যাচে মুখোমুখি হবে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

সাকিবের হয়ে একাই কথা বলতেছেন কলকাতার সাবেক অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে নিজের প্রথম ওভারেই বিরাট কোহলি ও রজত পাটিদারকে সাজঘরে ফেরান বরুণ চক্রবর্তী। এমন বোলিংয়ের পরও তাঁকে টানা বল করতে না দিয়ে সাকিব আল হাসানকে বল করান ইয়ন মরগান। যা একেবারে হাস্যকর লেগেছে গৌতম গম্ভীরের কাছে।

কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে দুইবারের শিরোপা অধিনায়ক জানিয়েছেন, তিনি কোনোদিনও এমন হাস্যকর অধিনায়কত্ব দেখেননি। সেই সঙ্গে ভারতের সাবেক এই ওপেনার খুশি যে এটা ভারতীয় কেনো অধিনায়ক করেননি। সেটা হলে সবাই সমলোচনার ছুরি ধরতো।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই বরুণের হাতে বল তুলে দেন মরগান। বোলিংয়ে এসে নিজের দ্বিতীয় বলেই কোহলিকে ফেরান বরুণ। ডানহাতি এই স্পিনারকে তুলে মারতে গিয়ে রাহুল ত্রিপাটির হাতে ক্যাচ দেন কোহলি। এরপর ওই ওভারের শেষ বলে রজতকে বোল্ড করেন বরুণ।

এমন দুর্দান্ত বোলিংয়ের পরও চতুর্থ ওভারে তাঁকে বোলিং না দিয়ে সাকিবের হাতে বল তুলে দেন মরগান। কিন্তু সুবিধা করতে পারেননি বাংলাদেশের এই অলরাউন্ডার।

দুই ওভার বোলিং করে ২৪ রান দিয়েও কোনো উইকেট পাননি। বিপরীতে বরুণ ৪ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। মূলত বরুণদের জায়গায় সাকিবকে বোলিং দেয়ার চটেছেন গম্ভীর।

এ প্রসঙ্গে গম্ভীর বলেন, ‘আমি খুশি যে কোনো ভারতীয় অধিনায়ক এমন ভুল করেনি। কারণ ভারতীয় কোনো অধিনায়ক এমনটা করলে এতক্ষণে সমালোচনায় ছুরি ধরতো। এটা সম্ভবত আমার দেখা সবচেয়ে হাস্যকর অধিনায়কত্ব ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি এটা ব্যাখ্যা করতে পারব না। কারণ এর জন্য আমার কাছে কোনো ভাষা নেই। যখন কেউ দুই উইকেট নেয় আর একজন ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যান আসে তখন আপনি পরের ওভারে উইকেট নেয়ার বিকল্পটি সরিয়ে ফেললেন।’

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment