InCollage 20230203 062436001

গোল করলো কালো মানিক জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ

আক্রমণ, বল দখল কিংবা শট; কোনো কিছুতেই রিয়ালের মাদ্রিদের বিপক্ষে লা লিগার ম্যাচে পাত্তা পায়নি ভ্যালেন্সিয়া। তাদের নিষ্প্রভ রেখে ২-০ গোলের জয় তুলে নিয়েছে লস ব্লাঙ্কোসরা।

বৃহস্পতিবার (০২ ফেব্রুয়ারি) রাতে রিয়ালের হয়ে জয়সূচক গোল দুটি করেছেন মার্কো আসেনসিও ও ভিনিসিউস জুনিয়র।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আধিপত্য করেছে কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা। পুরো ম্যাচে ৭১ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে তারা গোলের উদ্দেশে শট নেয় ১৯টি। যার ৭টিই ছিল লক্ষ্য বরাবর। বিপরীতে ভ্যালেন্সিয়ার নেয়া ৪ শটের একটিও থাকেনি লক্ষ্যে।

প্রথমার্ধে অবশ্য ঘরের মাঠের সমর্থকদের মুখে হাসি ফোঁটাতে পারেননি আসেনসিও, কামাভিঙ্গারা। ম্যাচ শুরুর তৃতীয় মিনিটেই দারুণ সুযোগ পেয়েও হতাশ করেন আসেনসিও। লুকা মদ্রিচের বাড়ানো পাস ডি-বক্সে নিজের নিয়ন্ত্রণে পেলেও তিনি পরাস্ত করতে পারেননি ভ্যালেন্সিয়ার গোলরক্ষককে। তার দুর্বল শট বাঁ প্রান্তে ঝাপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন জর্জিও মামারদাশভিলি।

এরপর ১৮ মিনিটে আসেনসিওর শট ভ্যালেন্সিয়ার ডিফেন্ডার গাব্রিয়েল পাউলিস্তার পায়ে বাধা পায়। দুর্বল শটে হতাশ করেন ভিনিসিউসও।

৩১ মিনিটে আসেনসিওর পাস ডি-বক্সে পেয়ে জোরালো শট নেন কামাভিঙ্গা। কিন্তু তার শট থাকেনি লক্ষ্যে। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে মদ্রিচের কর্নারে হেডে বল জালে পাঠান রুডিগার। তবে ঠিক তার আগে বেনজেমা প্রতিপক্ষের মিডফিল্ডার ইউনুস মুসাহকে ফাউল করায় ভিএআরের সাহায্যে গোল বাতিল করেন রেফারি। হলুদ কার্ডও দেখেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। একের পর এক সুযোগ মিসে শেষ পর্যন্ত প্রথমার্ধে আর গোল পাওয়া হয়নি রিয়ালের।

অবশেষে ম্যাচের ৫২ মিনিটে প্রথম গোলের দেয়া পায় লস ব্লাঙ্কোসরা। বেনজেমার পাস ডি-বক্সের বাইরে পেয়ে বুলেট গতির কোনাকুনি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে গোলটি করেন আসেনসিও। বল ফেরানোর কোনো সুযোগই পাননি মামারদাশভিলি। বরং তিনি প্রস্তুত ছিলেন না ডি-বক্সের বাইরে থেকে এমন শটের জন্য।

তিন মিনিটের ব্যবধানে দ্বিতীয় গোলটিও পেয়ে যায় রিয়াল। বেনজেমার পাস ধরে প্রায় মাঝমাঠ থেকেই দ্রুত গতিতে সবাইকে পেছনে ফেলে ডি-বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ভিনিসিউস। পরের মিনিটে আরও একটি গোলের দেখা পেতে পারতো রিয়াল। তবে ডি-বক্সে পরপর শট নেয়া মদ্রিচ এবং বেনজেমা দুজনই ব্যর্থ হন বল জালে জড়াতে।