অন্য ব্যাটাররা তেমন কিছু করতে পারলেন না। দলকে একাই টানলেন স্বর্ণা আক্তার। ঝড়ো ফিফটিতে এনে দিলেন লড়াইয়ের পুঁজি। পরে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে নিজেদের মেলে ধরলেন বোলাররা। আরেকটি জয়ের আনন্দে মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি সারল বাংলাদেশ।

জোহানেসবার্গের সেন্ট স্টিথিয়ান্স কলেজ মাঠে নিজেদের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে বুধবার ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয় ৩ রানে।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশ ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে তোলে ১২১ রান।

চার নম্বরে নেমে ৪৮ বলে ৭ ছক্কা ও ২ চারে অপরাজিত ৭৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন দলের সহ-অধিনায়ক স্বর্ণা।

দুই অঙ্কে যেতে পারেন আর কেবল আফিয়া হুমাইরা আনাম প্রত্যাশা। এই ওপেনার ১৯ বলে একটি করে চার-ছকায় করেন ১২ রান।

Suggested Post :  বাংলাদেশকে সরাসরি না বলে দিলো আয়ারল্যান্ড; অপমানীত বাংলাদেশ ক্রিকেট

জবাবে ভারত ২ উইকেট হারিয়ে যেতে পারে ১১৮ পর্যন্ত।

তৃষা গঙ্গাদি ৩৬ বলে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করে রান আউট হন। ভারতের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলা ওপেনার শেফালি ভার্মা ৫০ বলে করেন অপরাজিত ৪৩ রান।

বাংলাদেশের হয়ে একমাত্র উইকেটটি নেন দিপা খাতুন। ৪ ওভারে তিনি রান দেন ১৫।

দেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলা দুই ক্রিকেটার লেগ স্পিনার রাবেয়া খান ৪ ওভারে ১৪ রান, পেসার মারুফা আক্তার ৪ ওভারে ২৪ রান দেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলা আরও একজন আছেন বিশ্বকাপের দলে- ওপেনার দিলারা আক্তার। তিনি এ দিন ১২ বলে করেন ৫ রান।

Suggested Post :  নিজের জন্মদিনে গ্যালারিতে থাকা দর্শকদের বিশেষ উপহার দিলেন তামিম

মূল টুর্নামেন্টের আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচই জিতল বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ডাকওয়ার্থ লুইস স্টান পদ্ধতিতে ৭ রানে জিতেছিল দিশা বিশ্বাসের দল।

সেদিন স্বাগতিকদের ৯৮ রানে আটকে দিয়ে বাংলাদেশ ৪ উইকেটে ৭২ রান তোলার পর বৃষ্টিতে আর খেলা হয়নি।

ওই ম্যাচে ৪ ওভারে ১৩ রানে ৩ উইকেট নিয়েছিলেন মারুফা। দিশা ২৩ রানে ও দিপা ১৫ রানে নিয়েছিলেন ২টি করে উইকেট। স্বর্ণা সেদিনও সর্বোচ্চ ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন ২১ বল খেলে।