ব্রেকিংঃ ম্যাচ ফিক্সিং এর জন্য ক্ষমা চাইলেন শাহরুখ খান!

মুম্বাই জুজু কাটিয়েই উঠতে পারল না কলকাতা নাইট রাইডার্স। পুরো ম্যাচ দাপুটে খেলেও শেষ দুই ওভারে নিষ্প্রভ হয়ে হাতের নাগালে থাকা ম্যাচ শেষ পর্যন্ত হেরে বসেছে দলটি। এতেই দলের ওপর ক্ষেপে গিয়েছেন মালিক শাহরুখ খান। সরাসরিই নিজের অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন তিনি।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ১০ রানের জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। প্রথম ম্যাচটির জয় ছিল আইপিএলে কলকাতার ১০০তম জয়। দ্বিতীয় ম্যাচেও দুর্দান্ত শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত হতাশ করেছে দলটি।

চেন্নাইয়ে টস জিতে আগে বোলিং করতে নেমেছিল কলকাতা। দলটির পক্ষে সবচেয়ে কিপটে বোলিং করেন বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ৪ ওভারে ২৩ রান খরচ করে নেন ১টি উইকেট। আন্দ্রে রাসেল মাত্র ২ ওভার বোলিং করেই পেয়ে যান ৫টি উইকেট। নিজের ৩৫০তম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড গড়েন এই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার।

বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে হাতের নাগালেই বেঁধে ফেলে কলকাতা। রোহিত শর্মার দল ২০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করেছিল ১৫২ রান।

জবাবে উদ্বোধনী জুটিতেই ৭২ রান তুলে ফেলেছিলেন নিতিশ রানা ও শুবমান গিল। ম্যাচটি কলকাতার পক্ষেই ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই যেন সব উল্টোপাল্টা হয়ে যায়। রানা ও গিল ছাড়া আর কোনো ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে ব্যর্থ হন। রাহুল ত্রিপাটি ৫ বলে ৫ রান, ইয়ন মরগান ৭ বলে ৭ রান ও সাকিব ৯ বলে ৯ রান করেন।

দীনেশ কার্তিক ও আন্দ্রে রাসেলের ব্যাটে ঝুলেছিল কলকাতার ভাগ্য। তারা দুইজনই হতাশ করেন। রাসেল ১৫ বলে ৮ রানে আউট হন ও কার্তিক ১১ বলে ৮ রানে অপরাজিত থাকেন। জেতা ম্যাচ ১০ রানে হেরে বসে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

এমন হারের পরে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক নাখোশ হওয়ায় তো স্বাভাবিক। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শাহরুখ কলকাতার ভক্তদের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘হতাশাজনক পারফরম্যান্স, কলকাতা নাইট রাইডার্সের ভক্তদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।’

You May Also Like

About the Author: