গোল্ডেন গ্লাভস জিতবেন কে ? বোনো, মার্টিনেজ নাকি লিভাকোভিচ

দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও অঘটনে ঠাসা কাতার বিশ্বকাপে গোল্ডেন গ্লাভসের লড়াই চলছে পুরো দমে। এ বারের বিশ্বকাপে গোল্ডেন গ্লাভসের লড়াইয়ে রয়েছেন সেরা তিন গোলরক্ষক। তারা হলেন মরক্কোর বোনো, আর্জেন্টিনার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ এবং ক্রোয়েশিয়ার ডোমিনিক লিভাকোভিচ। ৩ জনই ম্যাচের পর ম্যাচে বাঁচাচ্ছেন নিজেদের দলকে। মরক্কো, আর্জেন্টিনা ও ক্রোয়েশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যায়গা করে নেয়ার অন্যতম কারণ তারা।

এ বারের বিশ্বকাপের চমক মরক্কো। আফ্রিকার প্রথম দেশ হিসাবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠেছে তারা। দলের ধারাবাহিকতার পিছনে সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব দেখিয়েছেন বোনো। বিশ্বকাপে মাত্র ১টি গোল খেয়েছেন তিনি। সেটিও সতীর্থের আত্মঘাতী গোল।

রাউন্ড অব সিক্সটিনে টাইব্রেকারে শক্তিশালী স্পেনকে হারিয়েছে মরক্কো। সেখানে স্পেনের তিনটি শটই ঠেকিয়ে দেন বোনো। পর্তুগালের বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালেও গোলপোস্টের নিচে চীনের প্রাচীর হয়ে উঠেছিলেন তিনি। নিশ্চিত গোল বাঁচিয়েছেন তিনি।

৩৬ বছরের শিরোপা খরা কাটাতে সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া বিরুদ্ধে খেলবে আর্জেন্টিনা। কোপা আমেরিকায় দুর্দান্ত পারফর্ম করা গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ কাতার বিশ্বকাপেও রয়েছেন দুরন্ত ফর্মে। কোয়ার্টার ফাইনালে টাইব্রেকারে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে ৮ বছর পর সেমিফাইনালে ওঠে আর্জেন্টিনা। ডাচদের বিপক্ষ ম্যাচের নায়ক হয়েছেন মার্টিনেজ। নেদারল্যান্ডসের প্রথম দুইটি পেনাল্টি বাজপাখির মতো ক্ষিপ্ততায় ঠেকিয়ে দেন তিনি। সেই সাথে আকাশি সাদা জার্সিদের সেমিফাইনালে তুলেন এই গোলরক্ষক।

লিভাকোভিচ ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক। তিনি কতটা দক্ষ তার পরিচয় এ বারের বিশ্বকাপে দুইটি ম্যাচে দেখা গিয়েছে। রাউন্ড অব সিক্সটিনে ও কোয়ার্টার ফাইনাল দুই ম্যাচেই টাইব্রেকারে জিতেছে ক্রোয়েশিয়া। দুইটি ম্যাচেই নায়ক হয়ে উঠেন লিভাকোভিচ।

জাপানের বিরুদ্ধে টাইব্রেকারে তিনটি পেনাল্টি বাঁচিয়েছিলেন লিভাকোভিচ। তার হাতেই জাপানিদের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল। সেখানেই শেষ নয়। ব্রাজিলের বিরুদ্ধে আরও এক বার দলের ত্রাতা হয়ে দাঁড়িয়েছেন তিনি। ১২০ মিনিটের ম্যাচে নেইমারদের ১৩টি শট ঠেকিয়ে দেন তিনি। তার পর টাইব্রেকারে রদ্রিগোর শট প্রতিহত করেছেন। সেই সাথে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হেক্সা মিশন স্বপ্নভঙ্গ হয়।

x

You May Also Like