আর্জেন্টিনার জেগে ওঠার ম্যাচ আজ

সৌদি আরবের কাছে হারের পর কান পাতলেই শোনা যায় আর্জেন্টিনার হাহাকার। তাদের সমর্থকদের আহাজারি এবং দলের ক্যাম্পে গিয়ে একাত্মতা প্রকাশের দৃশ্য দেখে কল্পনা করা যায় বুয়েনস এইরেসে বা পুরো আর্জেন্টিনার প্রত্যাশার ছবিটা। দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে ডিয়েগো ম্যারাডোনাকে স্মরণ করতে আর্জেন্টিনার সোনালি সময়ের তারকারাও এখন দোহায়। বলা যায়, কাতারে এখন আর্জেন্টাইন ফুটবলের মিলনমেলা।

একদিক থেকে এই মিলন যেমন শোকের, আবার শোকমুক্তিরও হতে পারে। সৌদি আরবের ধাক্কায় নেতিয়ে পড়া আর্জেন্টাইন ফুটবলকে জাগিয়ে তোলার উপলক্ষ হিসেবেও দেখা যেতে পারে। সুতরাং ম্যারাডোনার মৃত্যুবার্ষিকীর পরের দিন মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচটিকে ঘিরে এক ঐতিহাসিক বাতাবরণও হয়েছে চারদিকে। এই ম্যাচ পারে খাদের কিনার থেকে আর্জেন্টিনাকে টেনে তুলতে। এই ম্যাচ পারে প্রয়াত ম্যারাডোনার শোক ভোলাতে। পারে লিওনেল মেসির শেষ বিশ্বকাপকে নতুনভাবে রাঙাতে।

মেক্সিকো এমনিতে খুব বড় প্রতিপক্ষ নয় আর্জেন্টিনার। কিন্তু সময় এই ম্যাচটিকে আর্জেন্টিনার ভূত-ভবিষ্যতের সঙ্গে জড়িয়ে দিয়েছে। সৌদি আরবের কাছে প্রথম ম্যাচ হারে তারা পড়েছে মহাবিপাকে। তাই মেক্সিকোর সঙ্গে মুখোমুখি হওয়ার আগে আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনিও জয়ের বিকল্প কিছু ভাবতে পারছেন না, ‘আমরা মেক্সিকো ম্যাচ নিয়ে ভাবছি। এটা সম্পূর্ণ আলাদা ম্যাচ, যদিও আমাদের খেলার ধরনে কোনো পরিবর্তন আসবে না। আমরা একইভাবে এই ম্যাচটা খেলতে নামছি, যেখানে জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবার সুযোগ নেই আমাদের।’

গ্রুপে বাকি আছে দুটি ম্যাচ। শেষ ১৬-তে পৌঁছতে হলে আলবেসেলেস্তেদের জিততে হবে দুটিই। সেদিক থেকে লুসাইল স্টেডিয়ামে আজ মেক্সিকোর বিপক্ষে ‘সেমিফাইনাল’ খেলতে নামছে আর্জেন্টিনা।
সেমিফাইনাল বলে কথা। দলের অনেক কিছু বদলেই তারা নামছে। একাদশে কিছু বদল হবেই, সঙ্গে তাদের লড়াকু মেজাজেও আসতে হবে পরিবর্তন।

একাদশে পরিবর্তনগুলোর নামোল্লেখ না করে আর্জেন্টাইন কোচ বলেছেন, ‘হারটি (সৌদি আরবের বিপক্ষে) অবশ্যই বড় ধাক্কা দিয়েছে। মেক্সিকোর ম্যাচের কথা ভেবেই আমরা দলে পরিবর্তন আনব, তবে খেলার স্টাইলে কোনো পরিবর্তন আসবে না। অবশ্য খেলায় কিছু বৈচিত্র্য যোগ হতে পারে, সেটা চূড়ান্ত হবে শেষ ট্রেনিং সেশনে।’ তারা এত দিন ধরে যেভাবে খেলে আসছে, সেভাবেই খেলবে। শুধু পাপু গোমেজের মতো কয়েকজনকে বসিয়ে বেঞ্চ থেকে যোগ করবে নতুন শক্তি।

সৌদি আরবের ম্যাচে ভালো পারফরমারের সংখ্যাটা মোটেও বেশি ছিল না। তাই বলে পুরো দলকে তো বদলে ফেলা যায় না, বিশেষ পরিবর্তনটা মধ্যমাঠে হবে বলেই কোচের ইঙ্গিত।

এদিকে মেক্সিকোর গোলরক্ষক গুয়েলার্মো ওচোয়া হুমকি দিয়ে রেখেছেন। আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ শেষ করে দিতে প্রস্তুত তারা। তাতা মার্তিনোর দলটি প্রতিপক্ষকে চাপে রাখবে, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। স্কালোনিও তাই মেক্সিকোর আক্রমণভাগকে সমীহ করছেন, ‘মেক্সিকো ভালো দল।

x

You May Also Like