৬৩ বলে ১১৯ রান করেও ম্যাচ হার সরাসরি যাকে দুষলেন সাঞ্জু স্যামসন

সেঞ্চুরি হাঁকিয়েও দলকে জেতাতে পারলেন না রাজস্থান অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসন। শেষ বলে রাজস্থান হেরে বসেছে পাঞ্জাব কিংসের কাছে।ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের নতুন আসরের চতুর্থ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে রাজস্থান রয়্যালস ও পাঞ্জাব

কিংস। এই ম্যাচে প্রথমে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে শুরু থেকেই রাজস্থান বোলারদের উপর চড়াও হন পাঞ্জাবের ওপেনার লোকেশ রাহুল। তার সাথে ইনিংস উদ্বোধন করতে নামা মায়াঙ্ক আগারওয়াল কিছুটা দেখেশুনে খেললেও আগ্রাসী ছিলেন রাহুল।

দলীয় ২২ রানে উদ্বোধনী জুটি বিচ্ ছিন’্ন হয় ৯ বলে ১৪ রান করে শাকারিয়ার বলে আগারওয়াল সাজঘরে ফিরলে। ব্যাটিং দানব গেইলকে নিয়ে এরপর ৬৭ রানের জুটি গড়েন রাহুল। ২৮ বলে ৪০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে গেইল ফিরে গেলে অধিনায়ক রাহুল আবারও যোগ্য স’ঙ্গ পান দীপক হুদার কাছ থেকে।

দীপক হুদার সাথে এবার লোকেশ রাহুলের জুটি হয় ১০৫ রানের। ২৮ বল মোকাবেলায় ৪টি চার ও ৬টি ছক্কা হাঁকিয়ে দীপক যখন সাজঘরে ফিরছেন তখন তার নামের পাশে রয়েছে ৬৪ রান।

ইনিংসের শেষ ওভারে লোকেশ রাহুল যখন শাকারিয়ার বলে আউট হয়ে ফিরে যান তখন সেঞ্চুরি থেকে তিনি দূরে ছিলেন মাত্র ৯ রানের। ৫০ বল মোকাবেলায় ৭টি চার ও ৫টি ছক্কায় রাহুলের ৯১ রানে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে পাঞ্জাবের ইনিংস থামে ২২১ রানে।
বল হাতে এদিন রাজস্থানের হয়ে মুস্তাফিজুর ৪৫ রান বিলি করলেও নিতে পারেননি কোনো উইকেট।

২২২ রানের পাহাড়সম লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুর থেকেই বিপাকে পড়ে রাজস্থান রয়্যালস। ইনিংসের তৃতীয় বলে ওপেনার বেন স্টোকসকে হারানো রাজস্থান দলীয় ২৫ রান হারায় আরেক আরেক ওপেনার মানন ভোহরাকে।
ছোট্ট এই বিপর্যয় সামাল দেন জস বাটলার ও সাঞ্জু স্যামসন। ১৩ বলে ২৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে বাটলার বিদায় নিলে শিভাম দুবের সাথে মিলে দলের রানের চাকা সচল রাখেন অধিনায়ক স্যামসন।

ম্যাচ শেষে স্যামসন জানান, ” আমা’র আসলে বলার মতো ভাষা নেই, খুবই দুঃখজনক ম্যাচের খুব কাছে গিয়েও আ মর’া হেরেছি। আমা’র মনে হয় নাহ এর থেকে বেশী কছু আমা’র করার ছিল, দূর্ভাগ্যজনক ভাবে ডিপ অঞ্চলে ফিল্ডার ছিল আর আউট হয়ে গিয়েছি।উইকেট খুব ভালো ছিল তাই বোলরা সুবিধে করতে পারেনি, সবাই খুব ভালো খেলেছে।”

Related Post

x