দলে জায়গা না হওয়ায় বোমা ফাটালেন ইমরুল কায়েস

ইমরুল মনে করেন প্রথমেই জাতীয় দলের কোনো কোচ তাকে পছন্দ করেন না, সে কারণে তার ক্যারিয়ারে প্রভাব পড়েছে। অর্থাৎ, জাতীয় দলে কোচদের প্রথমদিকের সময়ে ইমরুল নজর কাড়তে পারলে যেন জাতীয় দল থেকে বারবার তাকে বাদ পড়তে হতো না!

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) মিরপুরে সাংবাদিকদের এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ”আফসোস তো অবশ্যই লাগে। কারণ ২০০৮ সালে আমার অভিষেক হয়েছে।

এখনও পর্যন্ত আমি যত কোচের অধীনে খেলেছি, আমার মনে হয় যে খুব কম কোচই আছে প্রথমেই আমাকে পছন্দ করছে। কিন্তু শেষের দিকে আমি যখন পারফর্ম শুরু করেছি,
তখন তারা পছন্দ করছে এবং দুর্ভাগ্যবশত আমি যখন ভালো খেলা শুরু করছি, তারা চলে গেছে। আবার নতুন কোচ আসছে। এভাবে আমি মনে করি আমার ক্যারিয়ারে প্রভাব পড়েছে।”

“কারণ একটা কোচের অধীনে যখন আপনি ভালো খেলবেন প্রথম থেকে এবং আপনার প্রতি বিশ্বাস তৈরি হবে, তখন কিন্তু আপনার ভালো খেলার প্রবণতা ভালো হবে।

আমার ক্ষেত্রে একটু ভিন্ন হয়ে গেছে। আমি জেমির (জেমি সিডন্স প্রধান কোচ থাকাকালীন) সময় থেকে শুরু করে হাথুরু সিং (চন্ডিকা হাথুরুসিংহে), যখনই ভালো খেলা শুরু করছি, ওদের হয়ত বা চলে যাওয়ার সময় হয়ে গেছে।

এটাই আরকি সমস্যা।“ বর্তমানে অজি কোচ সিডন্স আছেন সাকিব আল হাসানদের ব্যাটিং কোচের দায়িত্বে। তিনি আবার টাইগারদের শিবিরে ফেরার পর তার সঙ্গে কোনো কথা হয়েছে কিনা এ ব্যাপারে ইমরুল বলেন, “কথা তো অবশ্যই হয়েছে। আমাকে বলে যে তোমার কি খবর? আমি বলেছি। ও বলে তোমার খেলা উচিত (জাতীয় দলে)। কিন্তু এটা তো আর ওর হাতে না। ও তো আর হেড কোচ না। যেহেতু ও একটা দায়িত্বে আছে, ও দায়িত্ব নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তাই এটা (জাতীয় দলে ফেরা নিয়ে) নিয়ে আসলে ওই রকম কোনো কথা হয়নি।”

উল্লেখ্য, এর আগে সমর্থকরা যে এই টাইগার ওপেনারকে এখনও ভালোবাসে সেটা প্রকাশ করেন ইমরুল, ‘দেশের মানুষ আমাকে এখনো চায়, ভালোবাসে–এটাতেই আমি খুশি।

দেশের বাইরে গেলেও অনেকে বলেন, ভাই, আপনি বাংলাদেশ টিমে ডিজার্ভ করেন। আমরা দোয়া করি আপনি আবারও খেলেন। আমি মনে করি এটাই বড় পাওয়া।’

You May Also Like