জাতীয় দলে ফিরতে চেয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন ইমরুল কায়েস

দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় দলের বাইরে একসময়ের তারকা ওপেনার ইমরুল কায়েস। তবে আবারও লাল-সবুজের জার্সিটা গায়ে চাপাবেন এমন স্বপ্ন দেখেন তিনি। ২০১৯ সালে শেষবার জাতীয় দলে খেলেছিলেন। তবে দীর্ঘদিন বাইরে থাকলেও তার জনপ্রিয়তায় এতটুকুন ভাটা পড়েনি। ক্রিকেট সমর্থকদের হৃদয়ের বড় অংশজুড়েই রয়েছেন এ ক্রিকেটার।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) মিরপুরে সাংবাদিকদের এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ আমাকে এখনো চায়, ভালোবাসে–এটাতেই আমি খুশি। দেশের বাইরে গেলেও অনেকে বলেন, ভাই, আপনি বাংলাদেশ টিমে ডিজার্ভ করেন। আমরা দোয়া করি আপনি আবারও খেলেন। আমি মনে করি এটাই বড় পাওয়া।’

জাতীয় দলে সুযোগ না পেলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত মুখ ইমরুল কায়েস। তিনি বলেন, ‘টিমে সিলেক্ট হওয়া বা না-হওয়া এটা আমার হাতে নেই। আমি যেখানেই খেলি, সবসময় চেষ্টা করি ভালো খেলতে। নিজের আত্মতৃপ্তি বড় বিষয়।

তবে যখন দেখি বাংলাদেশ টিম খারাপ খেলছে, কিন্তু আমি খেলতে পারছি না। তখন খুব খারাপ লাগে। মিস করি অনেক। কারণ, আমি যখন খেলেছি, ভালো খেলার চেষ্টা করেছি। হয়তো আরেকবার সুযোগ পেলে প্রমাণ করার সুযোগ থাকত।’

ইমরুল কায়েস বলেন, ‘আমি জাতীয় দলের লক্ষ্য নিয়েই এখনো খেলছি। যখন দেখব যে আমার আর সুযোগ নেই, তখন হয়তো অন্য চিন্তা করব। তবে মানুষ আমাকে এখনো মিস করে–এটা আশীর্বাদের মতো।’

নিজের দুর্ভাগ্য প্রসঙ্গে বলেন, ‘জাতীয় দলে অভিষেকের পর থেকে দেখেছি, কোনো কোচই প্রথম দিকে আমাকে তেমন পছন্দ করত না। পরে যখন ভালো খেলতাম তখন তারা পছন্দ করা শুরু করত। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সে সময় দেখতাম তাদেরও বিদায় নেয়ার সময় হয়ে গেছে। বরাবর এটাই হয়েছে আমার সঙ্গে।’

ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়ে আবারও জাতীয় দলে ফিরতে পারবেন এমন আশা ইমরুলের। বলেন, ‘আমি মনে করি ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করতে পারলে আবারও দলে সুযোগ পাব। এটার জ্বলজ্যান্ত উদাহরণ হচ্ছে এনামুল হক বিজয়। অনেক ভালো খেলে সে দলে কামব্যাক করেছে।’

২০১৯ সালের শেষদিকে ভারত সফরের টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের জার্সিতে শেষবার দেখা গিয়েছিল ইমরুলকে। টাইগারদের হয়ে তিনি সাদা বলের দুই সংস্করণের ক্রিকেটে খেলেছিলেন আরও আগে। তার শেষ ওয়ানডে ছিল ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এবং শেষ টি-টোয়েন্টি ছিল ২০১৭ সালের অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে।

x

You May Also Like