শাহিন আফ্রিদির কপাল পুরতে চলছে!

হাঁটুর ইনজুরির কারণে সদ্য সমাপ্ত এশিয়া কাপ ও তার আগে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে পারেননি শাহিন শাহ আফ্রিদি। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আসন্ন সাত ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলতে পারবেন না তিনি।

আপাতত চোট কাটিয়ে ফেরার লক্ষ্যে লন্ডনে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু করেছেন ২২ বছর বয়সী এ বাঁহাতি পেসার। আগামী ১৫ অক্টোবর সরাসরি অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন শাহিন।

মাঝে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হতে যাওয়া ত্রিদেশীয় সিরিজেও থাকবেন না তিনি। মূলত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পুরোপুরি ফিট পাওয়ার জন্যই শাহিনকে এসব সিরিজ থেকে সরিয়ে রেখেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। তবে দেশটির সাবেক পেসার আকিব জাভেদ মনে করেন,
শাহিনের আসলে বিশ্বকাপেও খেলা ঠিক হবে না। সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে আকিব বলেছেন, ‘শাহিন আফ্রিদির মতো ফাস্ট বোলার প্রতিদিন জন্মায় না। শাহিনের জন্য আমার পরামর্শ থাকবে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে না খেলার জন্য। কারণ এই বিশ্বকাপের চেয়েও শাহিন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

এশিয়া কাপে শাহিন আফ্রিদিকে না পাওয়া নিয়ে রীতিমতো হাহাকার উঠেছিল পাকিস্তানের ক্রিকেটে। জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে চোট পাওয়া এই ক্রিকেটারকে টানা খেলানো এবং যথাযথভাবে পরিচর্যা না করায় সমালোচনাও করেছিলেন অনেকে।

আগস্টে নেদারল্যান্ডসে এবং এশিয়া কাপে দলের সঙ্গে আরব আমিরাত সফরেও নিয়ে যাওয়া হয় শাহিনকে। একপর্যায়ে চিকিৎসার জন্য তাঁকে লন্ডনে পাঠানো হয়েছিল বলে তখন জানানো হয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে। বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের নির্বাচক কমিটি জানায়, শাহিনের শারীরিক পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। আগামী মাসে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য পাকিস্তানের স্কোয়াডেও রাখা হয়েছে তাঁকে।

এরপর টেলিভিশনে টক শোতে শাহিনের চিকিৎসায় পিসিবির ভূমিকা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন শহীদ আফ্রিদি। পাকিস্তানের সাবেক এই অধিনায়কের মেয়ে শাহিনের বাগদত্তা। হবু শ্বশুর–জামাতা হিসেবে নিয়মিতই যোগাযোগ দুজনের। ‘সামা টিভি’র টক শোতে আফ্রিদি দাবি করেন, শাহিনের চিকিৎসা ও পুনর্বাসন নিয়ে কোনো দায়িত্বই নেয়নি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি), ‘সে নিজের টাকায় কেনা টিকিটে লন্ডনে গেছে।

সেখানে অবস্থানও করছে নিজের টাকায়। ওখানে আমি একজন চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছি। তাঁর সঙ্গেই যোগাযোগ করেছে। এ ক্ষেত্রে পিসিবি কিছুই করেনি।’ পিসিবির ইন্টারন্যাশনাল ট্যুর ডিরেক্টর জাকির খানের নাম উল্লেখ করে শহীদ আফ্রিদি আরও বলেন, ‘চিকিৎসকের সঙ্গে সমন্বয় করা থেকে শুরু করে হোটেলে থাকা, খাবার খরচ—সবই সে নিজের পকেট থেকে করছে। আমি যতদূর জানি জাকির খান এক বা দুবার ওর সঙ্গে কথা বলেছে, এটুকুই।’

তবে শাহিন আফ্রিদির চিকিৎসা নিয়ে শহীদ আফ্রিদির দাবির বিপরীতে অবস্থান পিসিবির। শাহিনের চিকিৎসা নিয়ে দেওয়া পিসিবির বিবৃতিতে বলা হয়, ‘লন্ডনে শাহিনের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া চমৎকারভাবে এগোচ্ছে এবং উন্নতি দৃশ্যমান। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেই সুস্থ হয়ে ওঠার পথে আছে সে। এটা বলার অবকাশ রাখে না যে পিসিবি সব সময়ই সব খেলোয়াড়দের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা এবং পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে এবং ভবিষ্যতেও এ বিষয়ক দায়িত্ব পালন করে যাবে।’

১৬ অক্টোবর থেকে অস্ট্রেলিয়ায় শুরু হবে টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সুপার টুয়েলভে ২৩ অক্টোবর ভারতের মুখোমুখি হয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে পাকিস্তান।

You May Also Like