টাইগারদের আগামী সফর গুলোর সূচি দেখুন

গত মার্চ মাসে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। এরপর কেটে গেছে নয়টি মাস। বিগত ২০ বছরে এতদিন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ‌বাইরে থাকেনি বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। তবে ঘরের মাঠে এখন পুরোদমে চলছে ক্রিকেট ম্যাচ। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করছে পাঁচটি দল।

তবে এরপর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরছে বাংলাদেশ। আগামী দুই বছর অনেক ব্যস্ত সময় কাটাতে হবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলকে। এই দুই বছরের সর্বোচ্চ সংখ্যক ম্যাচ খেলতে হবে বাংলাদেশ দলকে। ২০২১ এবং ২০২২ সাল মিলিয়ে অন্তত ৩৫টি ওয়ানডে এবং ৫৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

২০২১ সালে খেলবে অন্তত ১৫টি ওয়ানডে ও ৩১টি টি-টোয়েন্টি। ২০২২ সালে খেলার কথা রয়েছে ২০টি ওয়ানডে এবং ২৫টি টি-টোয়েন্টি। আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম বাইরে আরো অনেকগুলি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। ২০২১ সালে বাংলাদেশের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচের তালিকা:

১. জানুয়ারি- ফেব্রুয়ারি: ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে ও ২ টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল।
২. ফেব্রুয়ারি- মার্চ: নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে যাবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। যার চূড়ান্ত সময়সূচী উপরে দেয়া হয়েছে।

৩. এপ্রিল: এবছর বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর। নানা নাটকীয়তার পর সেই সিরিজ স্থগিত করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। তবে নতুন করে আবারো এই সিরিজ আয়োজনের জন্য বৈঠকে বসেছে দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ড। এখনো এই সিরিজ চূড়ান্ত না হলেও ধারণা করা হচ্ছে এপ্রিলে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল।
৪. মে: এপ্রিলেই শ্রীলঙ্কা সিরিজ শেষ করে এবার দেশের মাটিতে শ্রীলংকার বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল।

৫. জুন: এশিয়া কাপ

৬. জুন-জুলাই: এরপর দীর্ঘদিন পর জিম্বাবুয়ে সফরে যাবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তাদের মাটিতেই পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। তিনটি ওয়ানডে, তিনটি টি-টোয়েন্টি এবং দু’টি টেস্ট ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

৭. সেপ্টেম্বর: সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাটিতে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

৮. সেপ্টেম্বর-অক্টোবর: অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের পর ঐ মাসেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাটিতে তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

৯. অক্টোবর- নভেম্বর: এই সময়ে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেমিফাইনালে না উঠলেও অন্তত ৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে পারে বাংলাদেশ।
১০. নভেম্বর- ডিসেম্বর: টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর ঘরের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিনটি টি-টোয়েন্টি এবং দু’টি টেস্ট ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment