সোহান-ইয়াসিরের সুখবর, লিটনকে নিয়ে ঝুঁকি নিতে চায় না বিসিবি

এশিয়া কাপে নিয়মিত চার ক্রিকেটারকে ছাড়াই খেলেছে বাংলাদেশ দল। ইনজুরির কারণে টুর্নামেন্টে খেলতে পারেননি লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহান, ইয়াসির আলী রাব্বি ও হাসান মাহমুদ। দুই হেরে বিদায় নেয়া বাংলাদেশ এখন নিউজিল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ^কাপের পানে তাকিয়ে।

ইনজুরির সর্বশেষ খবরে সুখবর আছে সোহান ও ইয়াসিরকে। আঙুলে অস্ত্রোপচার হওয়া সোহান স্কিল ট্রেনিং শুরু করেছেন বুধবার। তাকে নিয়ে সংশয় নেই। ইয়াসিরও ফিটনেস টেস্ট দেয়ার অপেক্ষায় আছেন।

তবে লিটন দাস ও হাসান মাহমুদের বিষয়টি এখনও ঝুলছে। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি কাটিয়ে উঠা লিটন বুধবারও মিরপুর স্টেডিয়ামে রানিং করেছেন। বেশ উন্নতি হয়েছে তার। কিন্তু তাকে নিয়ে ঝুঁকি নিতে চায় না বিসিবি। পুরোপুরি ম্যাচ ফিটনেস না আসা পর্যন্ত তাকে ম্যাচে নামনো হবে না। এজন্য প্রয়োজনে ত্রিদেশীয় সিরিজেও তাকে খেলানো হবে না।

গোড়ালির চোটে পড়া ফাস্ট বোলার হাসান ইনজেকশন নিয়েছেন। ব্যাথাও কমেছে তার। এখন ব্যান্ডেজ খোলার পর বোঝা যাবে কবে বোলিং শুরু করতে পারবেন তিনি।

বুধবার ডেইলি ক্রিকেটকে জাতীয় দলের চার গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারের ইনজুরির সর্বশেষ অবস্থা জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী।

নুরুল হাসান সোহান: সোহান তো এখন স্কিল ট্রেনিং করবে। কিপিং করবে। ব্যান্ডেজ খুলে দেয়া হয়েছে। ওর আঙুলের অবস্থা ভালো। ব্যাট এখনও ধরেনি, ধরবে সামনে। ওর ব্যাপারে অসুবিধা হবে না আশা করছি।

ইয়াসির আলী রাব্বি: ইয়াসির তো ভালো রিকভার করেছে। ও আর কোনো ব্যথার কথা জানায়নি আমাদেরকে। এখন ফিটনেস টেস্ট তো আমরা নিবোই।

লিটন দাস: লিটন আস্তে আস্তে আগাচ্ছে। অগ্রগতি হচ্ছে। সপ্তাহ খানেক আরও লাগবে মনে হচ্ছে রিদমে আসতে। এখন উন্নতি হয়তো হবে, এখন খেলবে কিনা, কারণ খেলার ইনটেনসিটি তো আলাদা। আমাদের ফিটনেস টেস্ট পাস করলো, খেলা তো আলাদা। আমরা ঝুঁকি নিবো না। দরকার হয় পরে নামাবো লিটনকে। আমাদের হাতে সময় আছে।

আশা করছি এক সপ্তাহের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে। ঠিক না হলে দরকার হয় আমরা একটু অপেক্ষা করবো। তাড়াহুড়ো তো নেই।

হাসান মাহমুদ: হাসানকে ইনজেকশন দেয়া হয়েছে। ব্যাথা কমে গেছে ওর। তবে ২১ দিন না গেলে আমরা কিছু বলতে পারছি না। ১৬-১৭ দিন গিয়েছে। কালকে ওর ব্যান্ডেজ খুলে ফেলবো। ইনজেকশনের পর ও বলেছে, ওর ব্যথা কমে গেছে।

You May Also Like