ভারতের বিদায়ের ঘন্টা বাজিয়ে দিয়ে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা!

সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচেই পাকিস্তানের কাছে হেরেছে ভারত। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি তাই রাহুল দ্রাবিড়ের দলের জন্য আসরে টিকে থাকার লড়াই ছিল। গুরুত্বপূর্ণ ওই ম্যাচে অধিনায়ক রোহিত শর্মা দারুণ ব্যাটিং করেছেন। কিন্তু অন্যরা সুবিধা করতে পারেননি। বল হাতেও পারফর্ম করতে পারলেন না চাহাল ছাড়া তেমন কেউই। আর তাতেই পরাজয় বরণ করে নিয়ে এশিয়া কাপ থেকে এক ম্যাচ আগেই প্রায় বিদায় নিশ্চিত হলো ভারতের। অন্যদিকে সুপার ফোরে টানা দুই ম্যাচ জিতে ফাইনাল নিশ্চিত লঙ্কানদের।

এদিন আগে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ১৭৩ রান তুলতে পারে ভারত। জবাবে ১৯.৫ ওভারে ৬ উইকেট হাতে রেখে জয় তুলে নিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে পাঁচবারের এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা।

রান তাড়া করতে নেমে ভারতের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে শুরুটা দেখেশুনে করলেও চতুর্থ ওভার থেকেই হাত খুলে খেলা শুরু করেন লঙ্কান দুই ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কা ও কুশল মেন্ডিস। হার্দিকের এক ওভারে ১০ এবং আর্শদিপের ওভারে ১৮ রান নেয়াসহ পাওয়ার প্লের ৬ ওভারেই দলগত ৫০ রানের গণ্ডি টপকে যায় শ্রীলঙ্কা।

দুই ওপেনার দুজনেই তুলে নেন ফিফটি। ৯৭ রানের ওপেনিং জুটির চাহালকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে প্রথম উইকেট বিলিয়ে দেন পাথুম নিশাঙ্কা। ৫২ রান করা এই ওপেনারের বিদায়ের পর চারিথ আসালঙ্কাও পারেননি এশিয়া কাপে ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে। চাহালের দ্বিতীয় শিকার হয়ে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন এই ব্যাটার।

এরপর রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে লং অফ দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি সীমানায় লোকেশ রাহুলের হাতে ধরা পড়েন দানুশকা গুনাতিলাকা। তিনি করেন ১ রান। তবে ৪ উইকেট পতনের পর বড় জুটি গড়েন রাজাপাকসে ও শানাকা।শেষ পর্যন্ত দুজনের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে বল আগেই জয় তুলে নেয় লঙ্কানরা। শানাকা ১৮ বলে ৩৩ ও রাজাপাকসে ১৭ বলে ২৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কন্ডিশনে টস গুরুত্বপূর্ণ। সুপার ফোরের দ্বিতীয় ম্যাচেও তা পক্ষে আসেনি ভারতের। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কেএল রাহুল ব্যর্থ হন। ফিরে যান ৭ বলে ৬ রান করে। ফর্মে ফেরা কোহলি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে রানের খাতা খুলতে পারেননি।

তবে রোহিত শর্মা এক প্রান্তে ছিলেন অবিচল। তিনি খেলেন ৪১ বলে ৭২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। চারটি ছক্কার সঙ্গে পাঁচটি চার মারেন ডানহাতি ওপেনার। চারে নামা সূর্যকুমার যাদব তার সঙ্গে ৯৭ রানের জুটি গড়েন। কিন্তু কাছাকাছি সময়ে আউট হন তারা। সূর্যকুমার ২৯ বলে করেন এক চার ও এক ছক্কায় ৩৪ রান।

পরে ব্যাট হাতে ভালোর আশা দিলেও পারেননি হার্ডিক পান্ডিয়া ও ঋষভ পান্ত। দু’জনই ১৩ বলে ১৭ করে রান যোগ করে সাজঘরে ফেরেন। হার্ডিক একটি ছক্কা তোলেন, ঋষভ মারেন তিনটি চার। শেষে রবিশচন্দন অশ্বিন ৭ বলে এক ছক্কায় ১৫ রান করেন।

শ্রীলঙ্কার হয়ে তরুণ বাঁ-হাতি পেসার দিলশান মাদুসকা দারুণ বোলিং করেছেন। তিনি ৪ ওভারে মাত্র ২৪ রান দিয়ে তুলে নেন তিন উইকেট। অন্য পেসার চামিকা করুনারত্নে ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে তুলে নেন দুটি উইকেট। এছাড়া স্পিনার মহেশ থিকসানা ৪ ওভারে ২৯ রান খরচা করেন। একটি উইকেট পান। অধিনায়ক শানাকা ২ ওভারে ২৯ রান দিয়ে দুটি ব্রেক থ্রু দেন।

চাহালকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে প্রথম উইকেট বিলিয়ে দেন পাথুম নিশাঙ্কা। ৫২ রান করা এই ওপেনারের বিদায়ের পর চারিথ আসালঙ্কাও পারেননি এশিয়া কাপে ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে। চাহালের দ্বিতীয় শিকার হয়ে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন এই ব্যাটার। এরপর রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে লং অফ দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি সীমানায় লোকেশ রাহুলের হাতে ধরা পড়েন দানুশকা গুনাতিলাকা। তিনি করেন ১ রান।

এক বল বিরতি দিয়ে চাহালের ফ্লিপারে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফেরেন কুশল মেন্ডিস। ৩৭ বলে ৫৭ রান করা এই ওপেনারের ইনিংসে ছিল ৪টি চার ও ৩টি ছয়ের মার। এখন ভানুকা রাজাপাকসের সাথে ক্রিজে আছেন লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা। প্রতিবেদনটি লেখা পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ছিল ১৬.১ ওভার শেষে ৪ উইকেটে ১৩৩ রান। জয়ের জন্য লঙ্কান এখন প্রয়োজন ২৩ বলে ৪১ রান।

You May Also Like