মুশফিকের অবসরে খেপেছেন আব্দুর রাজ্জাক; বোমা ফাটালেন রাজ্জাক!

মাঠে থেকে মুশফিকুর রহিমের টি-টোয়েন্টিতে বিদায় হলে ভালো হতো বলে মনে করেন একসময়ের সতীর্থ আর এখনকার নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক।

বিদায় যখন হলোই তা এশিয়া কাপেই হতে পারতো বলে বিশ্বাস তার। মুশফিক না থাকলেও বিশ্বকাপের দল গুছিয়ে এনেছেন নির্বাচকরা। সেখানে বিবেচনায় আছেন সৌম্য সরকারও। আর পরামর্শক শ্রীরামের তিনদিনের ক্যাম্প থেকে যুক্ত হতে পারেন নতুন কেউ।

মাঠে থেকে নয়, ক্রিকেটাররা এখন বিদায় নিচ্ছেন সামাজিকমাধ্যমে। এই ট্রেন্ডের সবশেষ সংযোজন মুশফিকুর রহিম। যদিও এশিয়া কাপে তার খেলা নিয়েই ছিল দোলাচল। এরপর দুই ম্যাচে রান না পাওয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মুশির ভবিষ্যৎ ঢেকে যায় কালো মেঘে। সেই মেঘ অবশ্য নিজেই সরিয়েছেন অবসরের ঘোষণা দিয়ে।

কিন্তু মাঠ থেকে বিদায় না হওয়ায় হতাশ বর্তমান নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, মুশফিকের যেহেতু বলারই ইচ্ছা, তাহলে হয়তো ম্যাচের মধ্যে বললে খুব একটা খারাপ হতো না। অন্তত মাঠ থেকে বিদায়ের পরম্পরা থাকতো। এমনটাই হওয়া উচিত। আমরা যেমন দেখেছি, বিভিন্ন দেশের বড় বড় ক্রিকেটাররা মাঠ থেকেই ‘থ্যাংক ইউ’ বলে গেছে যে, আমি আর খেলা চালিয়ে যাচ্ছি না।

মুশফিককে বাদ দিয়েই অবশ্য নিউজিল্যান্ডে তিন জাতি সিরিজ ও বিশ্বকাপের দল গুছিয়ে এনেছেন নির্বাচকরা। সব ঠিক থাকলে ফিরবেন সোহান, লিটন, রাব্বিরা। সেই সঙ্গে আলোচনায় আছেন সৌম্য সরকারও। গুঞ্জন কতটা সত্য, তা নিয়ে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, যেসব খেলোয়াড়ের দিকে নির্বাচকদের দৃষ্টি থাকে তাদের মধ্যে কিন্তু সৌম্য সরকার সব সময়ই থাকে। ও এখনও আছে। নাঈম শেখও আছে। আমাদের সাধারণত কয়েকজন খেলোয়াড়কেই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে কাজ করতে হয়।

আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর দল ঘোষণা করতে হবে বিশ্বকাপের। আর এ মাসের শেষে দল যাবে নিউজিল্যান্ডে। সেখানে ভাবনায় রাখতে হচ্ছে ইনজুরিকেও। আর তাই, বাড়তি ক্রিকেটারও রাখা হতে পারে তিনজাতি সিরিজে। তবে সবকিছু চূড়ান্ত হবে পরামর্শক শ্রীরামের অধীনে মিরপুরে হওয়া তিনদিনের ক্যাম্প শেষে।

You May Also Like