মাত্র পাওয়াঃ ১ম ম্যাচ হেরে সাকিব যাকে দুষলেন

একজন ব্যাটার আউট হলেই ধস নামে বাংলাদেশ শিবিরে। সর্বশেষ কয়েক টেস্টে সেটা ভয়াবহ রূপ নিয়েছিল। ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে মাত্র ২৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। আর দ্বিতীয় ইনিংসে টাইগাররা ৫ উইকেট হারিয়েছিল ৫৩ রানে। ব্যাটারদের এমন পারফর‌ম্যান্সের পর জেমি সিডন্স জানিয়েছিলেন, দ্রুত উইকেট হারানোর সমস্যা কাটিয়ে উঠতে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিমান ধরার আগে এমন কথা জানালেও চিত্রপট বদলাতে পারেননি বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ।

অ্যান্টিগায় লাঞ্চের আগে মাত্র ৭৬ রানেই ৬ উইকেট হারিয়েছিল বাংলাদেশ। টেস্টের প্রথম সেশনে এমন ব্যাটিংয়ের পর আর সেভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারেননি সফরকারীরা। সাকিব আল হাসান মনে করেন, প্রথম দিনের প্রথম সেশনই বাংলাদেশের ম্যাচ শেষ করে দিয়েছে। বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক জানিয়েছেন, ব্যাটারদের এমন ধস গ্রহণযোগ্য নয়।

ম্যাচ শেষে এ প্রসঙ্গে সাকিব বলেন, ‘আমরা যদি নিজেদেরকে আরও ভালোভাবে প্রয়োগ করতে পারতাম তাহলে ভালো হতো। ৬ উইকেট হারিয়ে লাঞ্চে যাওয়াটা ভালো বিষয় নয়। সেই প্রথম সেশন আমাদের ম্যাচটা শেষ করে দিয়েছে। টেস্টে আমাদের প্রতিনিয়তই ধস নামছে। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। ব্যাটারদের রান করার উপায় খুঁজে বের করতে হবে। এটা নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে। এটা সহজ সমীকরণ।

দ্বিতীয় ইনিংসেও দেড়শ রানের আগে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছিল বাংলাদেশের। ১০৯ রানে ৬ উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশের হাল ধরেন সাকিব ও নুুরুল হাসান সোহান। তাদের দুজনের জুটি থেকে আসে ১২৩ রানে। তাতে ইনিংস হার এড়িয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে লিড নেয় বাংলাদেশ।

শতরানের জুটিতে সাকিবকে দারুণভাবে সঙ্গ দিয়েছেন সোহান। খেলেছেন ১৪৭ বলে ৬৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংসও। এমন ব্যাটিংয়ের পর সোহানের প্রশংসা করেছেন সাকিব। সেই সঙ্গে সোহানকে দেখে অন্য ব্যাটারদের শেখার তাগিদও দিয়েছেন বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক।

সাকিব বলেন, ‘এখান থেকে নেয়ার অনেক কিছুই আছে। নুরুল চাপে ছিল। সে নিজেকে যেভাবে প্রকাশ করেছে এটা ভালো ব্যাপার। অন্য ব্যাটাররা একই অ্যাপ্রোচ নিতে পারে এবং পরের ম্যাচে ভালো ক্রিকেট খেলতে পারে।’

You May Also Like

About the Author: