সাঙ্গাকারার রেকর্ডে ভাগ বসাতে পারলো না বাবার আজম

Untitled design 2022 06 11T050048.292

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ২৩ রানের আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম। একইসঙ্গে তিনি আক্ষেপে পুড়েছেন কুমার সাঙ্গাকারার টানা চার ইনিংসে পাওয়া সেঞ্চুরির রেকর্ডে ভাগ বসাতে না পারায়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে শুক্রবার (১০ জুন) ৭৭ রানের ইনিংস খেলে আকিল হোসেনের বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন বাবর। ৯৩ বল মোকাবিলায় ৫ বাউন্ডারির সঙ্গে তার ব্যাট থেকে আসে একটি ছক্কার মার।

দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭২ রানের ইনিংস খেলেন ইমাম-উল-হক। বাবরের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে তিনি ফাঁদে পড়েন রান আউটের। তাদের ব্যাটের ওপর ভর করে নির্ধারিত ওভার শেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ গিয়ে দাঁড়ায় ৮ উইকেট হারিয়ে ২৭৫ রান।ক্যারিবীয় বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেন আকিল হোসেন।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গত এপ্রিলে পরপর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো বাবর ক্যারিবীয়দের বিপক্ষেও প্রথম ম্যাচে খেলেন ১০৩ রানের অনবদ্য ইনিংস। আর তাতে তিনি ওয়ানডে ক্রিকেটে ইতিহাসে দুইবার টানা তিন সেঞ্চুরির হাঁকানোর রেকর্ড গড়েন। এর আগে ২০১৬ সালেও তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা তিন ইনিংসে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন।

ওয়ানডেতে প্রথম টানা তিন ইনিংসে শতকের রেকর্ড গড়েছিল অবশ্য জহির আব্বাস। ১৯৮২ সালের ডিসেম্বর থেকে ১৯৮৩ সালের জানুয়ারির মধ্যে ভারতের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় থেকে চতুর্থ ওয়ানডেতে এই কীর্তি গড়েছিলেন তিনি। জহিরের পর টানা তিন ইনিংসে শতকের রেকর্ড গড়েন তার আরেক পাকিস্তানি সাঈদ আনোয়ার।

এরপর হার্শেল গিবস, এবি ডি ভিলিয়ার্স, কুইন্টন ডি কক, রস টেলরের এ রেকর্ড হয়। তাদের পর বাবর, জনি বেয়ারস্টো, বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মাও এই রেকর্ডে নাম লেখান। তবে দুইবার একই কীর্তি কেবল বাবরেরই আছে। এদিকে বাবর ২৩ রানের জন্য স্পর্শ করতে পারেননি শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি ব্যাটার সাঙ্গাকারার রেকর্ড।

২০১৫ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপে টানা চার ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন লঙ্কান এই সাবেক ব্যাটার। শুরুটা করেন বাংলাদেশের বিপক্ষে। এরপর ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ার এবং সবশেষ স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে শতক দিয়ে টানা চতুর্থ শতকের রেকর্ডটি নিজের করে নেন তিনি।

You May Also Like