দেখে নিন এশিয়া কাপে ভারতের সম্ভাব্য একাদশ

এশিয়া কাপে দ্বিতীয় সারির দল পাঠাতে পারে ভারত। জুনের শেষের দিকে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত এশিয়ার ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর। অথচ এ আসরে কীনা দেখা যাবে না ভিরাট কোহলি, রোহিত শর্মার মত বড় তারকাদের।

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ওঠার কারণে এমন অদ্ভুতুড়ে পরিস্থিতির শিকার হয়েছে ভারত। ১৮-২২ জুন ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শিরোপার লড়াইয়ে নামবে কোহলির দল। অন্যদিকে জুনের শেষ সপ্তাহে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল শেষে কোয়ারেন্টাইন মেনে শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ খেলাটা অসম্ভব হয়ে পড়বে। তাই এশিয়া কাপে দ্বিতীয় সারির দলের উপর আস্থা রাখতে চাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।

এছাড়াও টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের পর ইংল্যান্ডেই থেকে যেতে চাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট দল। কেননা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪ আগস্ট থেকে শুরু হবে ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

চলুন জেনে নেই, কেমন হতে পারে সে একাদশ।

ওপেনারঃ
ওপেনার হিসেবে থাকছেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান শিখর ধাওয়ান। এশিয়া কাপে সম্ভাব্য অধিনায়ক হিসেবে তাকে ভাবা হচ্ছে। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভারতের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ধাওয়ান। তবে ওয়ানডের তুলনায় টি-টোয়েন্টিতে খুব একটা সপ্রতিভ নন তিনি। ৬২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ২৮.২৮ গড় এবং ১২৮.২৮ স্ট্রাইক রেটে ১৬৬৯ রান করেছেন তিনি। ১১টি ফিফটির দেখা পেয়েছেন।

এছাড়াও দলে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন বামহাতি ওপেনার দেবদূত পাডিকাল। প্রথমে ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে টার চার ম্যাচে চারটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন এ বিজয় হাজারে ট্রফিতে। সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতে ৬ ম্যাচে ১৩৪.৫৬ স্ট্রাইক রেটে ২১৮ রান করেছেন কর্নাটকের হয়ে। এছাড়া গত আইপিএলে কোহলি ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের সতীর্থ হিসেবে অসাধারণ ব্যাটিংও করেছিলেন।

মিডল অর্ডারঃ
৩ নাম্বার ব্যাটসম্যান হিসেবে আদর্শ ভাবা হচ্ছে সুরিয়াকুমার যাদবকে। গত আইপিএলে সবচেয়ে ধারাবাহিক ছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ১৫ ম্যাচে ১৪৫.০১ স্ট্রাইক রেটে ৪৮০ রান করেছিলেন, ছিল ৪টি হাফ সেঞ্চুরি। মিডল অর্ডারের সবচেয়ে ধারাবাহিক এবং নির্ভর‍যোগ্য হচ্ছেন সুরিয়াকুমার।

৪ নাম্বারের জন্য শ্রেয়াস আইয়ারকে অটো চয়েজ ভাবা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ভারতের হয়ে ২৪টি টি-টোয়েন্টি এবং ২১টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ফেলেছেন। কিছু ম্যাচ উইনিং ইনিংসও উপহার দিয়েছিলেন।

৫ নাম্বার ব্যাটসম্যান হিসেবে দেখা যেতে পারে গত বছর আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে দাপুটে পারফরম্যান্স করা ইশান কিশানকে। কুইন্টন ডি ককের পাশাপাশি দলের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় ছিলেন তিনি।

১৫০.৩১ স্ট্রাইক রেট রয়েছে রাহুল তেওয়াটিয়ার। রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে কিছু অসাধারণ ইনিংসও খেলেছিলেন গত বছর। ৬ নাম্বার ব্যাটসম্যানের তেওয়াটিয়াই সবচেয়ে আদর্শ হতে পারেন বলে বিবেচিত হচ্ছে। একইসাথে লেগব্রেক বোলিংয়েও প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে পারেন তিনি।

খুব একটা ধারাবাহিক না হলেও নিজের দিনে যেকোন প্রতিপক্ষের বোলিং লাইনআপকে চুরমার করে দিতে পারেন সাঞ্জু স্যামসন। ২০২০ আইপিএলের প্রথম দুইটি ইনিংস টুর্নামেন্টের ইতিহাসে অন্যতম সেরা অবিশ্বাস্য ইনিংস হিসেবে উল্লেখযোগ্য থাকবে। ১৬০ স্ট্রাইকরেট নিয়ে আইপিএল শেষ করেন তিনি। পাশাপাশি উইকেটকিপিংয়েও পারদর্শী তিনি। লোয়ার অর্ডারে ৭ নাম্বারে তাকেই দেখা যেতে পারে।

বোলাররাঃ

এশিয়া কাপে নতুন বলে দীপক চাহারকে দেখা যেতে পারে। তার সাথে জুটি বাঁধবেন বামহাতি পেসার থাঙ্গারাসু নটরাজন। আইপিএলের ইতিহাসে পাওয়ারপ্লেতে সবচেয়ে অভিজ্ঞ ও কার্যকরী বোলার দীপক চাহার। দ্রুত উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ডট বল দিতে ওস্তাদ চাহার। এছাড়া রয়েছে নটরাজনের মত টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট বোলারও। পুরো আইপিএলে ৬৪টি নিখুঁত ইয়র্কার বল দিয়েছিলেন। ডেথ বোলিংয়ে ভারতের ভরসার প্রতীক তিনি।

গত কয়েক বছরে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অসংখ্য ম্যাচে জয় এনে দেওয়া লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল অবধারিতভাবে দলের স্পিন আক্রমণ সামলাবেন। ভারতের হয়ে ৪৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ৫৯ উইকেট নিয়েছেন তিনি। তার সহযোগী হিসেবে অভিষেক ঘটতে পারে রহস্যময় স্পিনার বরুণ চক্রবর্তীর। আইপিএলে কোলকাতার হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করে ১৩ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়েছিলেন গত আইপিএলে।

এশিয়া কাপে সম্ভাব্য ভারতীয় একাদশঃ
শিখর ধাওয়ান (অধিনায়ক), পৃথ্বী শ/ দেবদূত পাডিকাল, সুরিয়াকুমার যাদব, শ্রেয়াস আইয়ার, ইশান কিশান, রাহুল তেওয়াটিয়া, সাঞ্জু স্যামসন, দীপক চাহার, যুজবেন্দ্র চাহাল, থাঙ্গারাসু নটরাজন এবং বরুণ চক্রবর্তী।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment