মেসির পর আর্জেন্টিনার ভবিষ্যৎ বিশ্বসেরা খেলোয়ারের নাম জানালেন কোচ স্কালোনি

আর্জেন্টিনার হয়ে একটি বৈশ্বিক কোনো শিরোপা জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ছিলেন লিওনেল মেসি। খুব কাছে গিয়েও কয়েকবার খালি হাতে ফিরতে হয়েছে কিং লিওকে। বয়স বাড়ছে। এখন ৩১! ক্যারিয়ারের শেষ ধাপে এসে কোপা আমেরিকা এবং ফিনালিসিমা জয় করে সেই সাধও নিয়ে নিলেন মেসি। আন্তর্জাতিক ফুটবলকে অবশ্য এখনই বিদায় বলছেন না মেসি।

তবে কেউ-ই চিরকাল খেলে বেড়ান না। একটা সময় সবাইকেই থামতে হয়। মেসিও একদিন জাতীয় দলকে বিদায় জানাবেন। ভবিষ্যতের জন্য তখন নতুন পরিকল্পনায় দল সাজাতে হবে ১৯৯৩ সালের পর কোনো আন্তর্জাতিক শিরোপা জিততে না পারা আর্জেন্টিনাকে।

চাইলে এখন থেকেই মেসির বিকল্প ভাবতে পারে আলবিসেলেস্তেরা। মেসির বিকল্প মেসিই। তবে শূন্যস্থানও কখনও চিরস্থায়ী নয়। যেমন ম্যারাডোনা, বাতিস্তুতাদের পর মেসি এসেছেন। সামনেও নতুন কাউকে কাঁধে তুলে নিতে হবে দায়িত্বটা। আর্জেন্টিনায় কে হতে পারেন মেসির বিকল্প? এমন প্রশ্নের জবাবে একটি নাম সামনে আসছে। দেখে নেয়া যাক কে সে সুপারস্টার।

পাওলো দিবালাঃ খেলার স্টাইলের দিক থেকে মেসির সঙ্গে খুব বেশি ফুটবলারের সাদৃশ্য নেই। তবুও ক্লাব ও জাতীয় দলে মেসির বিকল্প হিসেবে সবার আগে পাওলো দিবালার নামই উচ্চারিত হয়।

অনেকটা মেসির মতো ক্ষীপ্রতা আছে বলেই। গোল বানাতে পারেন, গোল করতে পারেন, করাতে পারেন, গোল না পেলেও সমস্যা নেই- পারেন প্রতিপক্ষ বক্সে ত্রাস ছড়াতে।

জুভেন্টাসের হয়ে ১৮২ ম্যাচ খেলে ৭৮ গোল করেছেন দিবালা। পাশাপাশি ৩১ গোলে অ্যাসিস্ট করেছেন। যদিও আর্জেন্টিনার জার্সিতে ২০ ম্যাচে মাত্র এক গোল জুভেন্টাস তারকা।

জাতীয় দলে বাজে পারফরম্যান্সের কারণও আছে দিবালার! আর্জেন্টিনার কোচরা এমন কোনো উপায় বের করতে পারেননি, যাতে মেসি ও দিবালাকে একইসঙ্গে একাদশে ঠিকঠাক খেলাতে পারেন।

মেসির সঙ্গে খেলতে পারেন না, দিবালাকে এমন অভিযোগ মাথায় নিয়ে অনেকটা সময় বেঞ্চেই কাটাতে হয়। অথবা ক্লাবে যে পজিশনে খেলে থাকেন সেটার বাইরের পজিশনে খেলতে হয়।

কারণ মেসি ও দিবালার খেলার স্টাইল ও পজিশন একই রকম। মেসি যখন জাতীয় দলকে বিদায় বলবেন, দিবালা তখন নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ থাকবে। বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের অবসরের পর দিবালা আলো জ্বালাতে পারেন কিনা সেটি দেখতে অবশ্য আরও কিছুসময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

You May Also Like

About the Author: