দক্ষিণ কোরিয়াকে গোলবন্যায় ভাসাল ব্রাজিল

প্রথমার্ধ শেষ হয়েছিল ২-১ গোলে। ৭ম মিনিটে রিচার্লিসনের গোলের পর ৩১তম মিনিটে দক্ষিণ কোরিয়া সমতায় ফেরে হাং উই জু-এর গোলে। ৪২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে আবারও ব্রাজিলকে এগিয়ে দেন নেইমার। ৫৭ তম মিনিটে আবারও পেনাল্টি। এবারও স্পট কিক নেন নেইমার এবং ব্রাজিল এগিয়ে গেলো ৩-১ গোলে।

দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচ। তবে দলটার নাম যেহেতু ব্রাজিল, সে কারণে ম্যাচটাও আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে সমর্থকদের কাছে। নেইমাররা হতাশও করছেন না ভক্ত-সমর্থকদের।

ম্যাচের শুরুতেই গোল আদায় করে নিয়েছে ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ৭ম মিনিটে ফ্রেডের কাছ থেকে বল পেয়ে খুব কাছ থেকে ডান পায়ের দারুণ এক শটে দক্ষিণ কোরিয়ার জালে বল জড়ান রিচার্লিসন।

তবে ব্রাজিল এই গোলটি বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি। নিজেদের মাঠ বলে দক্ষিণ কোরিয়া শুরু থেকেই ছিল উজ্জীবিত। গোল হজম করার পর সেটিকে পরিশোধ করার জন্য ছিল মরিয়া।

শেষ পর্যন্ত ম্যাচের ৩১তম মিনিটে গোল শোধ করে দেয় তারা। বক্সের বাম প্রান্ত থেকে ডান পায়ের দারুণ এক শটে ব্রাজিল গোলরক্ষক ওয়েভার্টনকে পরাস্ত করেন হাং উই জু। ১-১ গোলে সমতায় বিরাজ করছে এখন ব্রাজিল-দক্ষিণ কোরিয়া ম্যাচ।

তবে ৪২তম মিনিটে আবারও নেইমারের গোলে এগিয়ে গেলো ব্রাজিল। পেনাল্টি কিক থেকে গোল করেন পিএসজিতে খেলা ব্রাজিলিয়ান এই তারকা।

৩৯তম মিনিটেই মূলতঃ বক্সের মধ্যে আলেক্স সান্দোকে বাজেভাবে ফাউল করেন লি ইয়ং। রেফারি খেলা চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিলেও ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ভিএআর দেখেন রেফারি। ভিএআর দেখেই পেনাল্টির নির্দেশ দেন তিনি। ৪২তম মিনিটে স্পট কিক নেন নেইমার।

প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে একটি নিশ্চিত গোল মিস হলো ব্রাজিলের। নেইমারের কর্ণার কিক থেকে ভেসে আসা বলে হেড করেন থিয়াগো সিলভা। কিন্তু বল পোস্টে লেগে ফিরে আসে। ফিরতি বল পেয়েছিলেন ক্যাসেমিরো। কিন্তু একেবারে গোলপোস্টের সামনে থেকেও বলটি তিনি মেরে দেন উপরের দিকে। ফলে নিশ্চিত গোলের সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারলো না তারা।

৫৪ মিনিটে দারুণ একটি আক্রমণ পরিচালনা করে ব্রাজিল। ৫৩তম মিনিটে লুকাস পাকুয়েতার দারুণ একটি গোলের সুযোগ কর্নারের বিনিময়ে নষ্ট করে দেন দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক কিম সিউং গিউ। কর্নার কিক থেকে ভেসে আসা বল গোলরক্ষক ক্লিয়ার করলেও বল পায়ে থেকে যায় ব্রাজিলের।

এরপর দারুণ একটি আক্রমণ চালায় তারা। সেই আক্রমণে বক্সের মধ্যে বল পেলেও তাকে হার্ড ট্যাকল করেন কিম ইয়ং গাউন। পরে রেফারি ভিএআর দেখে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নেন। এবারও (৫৭তম মিনিটে) স্পট কিক নিতে আসেন নেইমার। তার দারুণ বুদ্ধিদীপ্ত শট জড়িয়ে যায় দক্ষিণ কোরিয়ার জালে।

You May Also Like

About the Author: