লিটন দাশের এই রেকর্ড এর ধারে কাচে নেই সাকিব তামিম

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুর টেস্টে দলের বিপর্যয়ে দুই ইনিংসেই ঢাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন লিটন কুমার দাস। দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরির পর করেছিলেন ফিফটি। এমন উজ্জ্বল পারফরম্যান্সের প্রতিফলন পড়েছে তার র‍্যাঙ্কিংয়ে। ফিরেছেন ক্যারিয়ার সেরা ১২তম স্থানে।

সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একটি রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন লিটন। দেশের হয়ে টেস্টে সর্বোচ্চ রেটিং পয়েন্টে ছাড়িয়ে গেছেন তিনি তামিম ইকবালকে।

লিটনের রেটিং পয়েন্ট এখন ৭২৪। ২০১৭ সালের অগাস্টে তামিম ৭০৯ রেটিং পয়েন্ট গড়েছিলেন। বাংলাদেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ রেটিং পয়েন্ট সাকিব আল হাসানের, ৬৯৪।

লঙ্কানদের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের পরও র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়েছিলেন লিটন। সেবার ৩ ধাপ এগিয়ে জায়গা করে নেন ১৭ নম্বরে। মিরপুরে ক্যারিয়ার সেরা ১৪১ রানের ইনিংস খেলার পর করেন ৫২ রান। তাতে র‍্যাঙ্কিংয়ে আরও ৫ ধাপ এগোলেন এই কিপার-ব্যাটসম্যান।

১০ উইকেটে হারা ওই ম্যাচের প্রথম ইনিংসে যখন ২৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে কাঁপছিল বাংলাদেশ, লিটনকে নিয়ে দলকে পথে ফেরান মুশফিকুর রহিম। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান অপরাজিত ছিলেন ১৭৫ রান করে। দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি করেন ২৩।

ব্যাট হাতে ঝকঝকে এই পারফরম্যান্সে র‍্যাঙ্কিংয়ে ৮ ধাপ এগিয়েছেন মুশফিক। ক্যারিয়ার সেরা ১৭তম স্থানে যৌথভাবে আছেন নিউ জিল্যান্ডের হেনরি নিকোলসের সঙ্গে। তার আগের সেরা ছিল ১৮ নম্বর, গত নভেম্বরে উঠেছিলেন তিনি। বতর্মানে তার রেটিং পয়েন্ট ৬৭৫।

ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ‘পেয়ার’-এর (দুই ইনিংসেই শূন্য) তেতো স্বাদ পাওয়া তামিমের অবনতি হয়েছে। ৫ ধাপ নিচে নেমে ৩২ নম্বরে আছেন বাঁহাতি ওপেনার। তার বর্তমান রেটিং পয়েন্ট ৫৭৭।

এছাড়া বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে আগের মতোই সাকিব আছেন ৪৩তম স্থানে। তার বর্তমান রেটিং পয়েন্ট ৫৫৩। বাজে সময় কাটানো মুমিনুল হক নিচে নেমে গেছেন আরও, এখন আছেন ৬৪ নম্বরে।

লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের মধ্যে উন্নতি হয়েছে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের। সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ১৪৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে ৫ ধাপ এগিয়েছেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। ২০১৯ সালের অগাস্টের পর প্রথমবার র‍্যাঙ্কিংয়ের সেরা ১৫তে ঢুকে যৌথভাবে ১৫ নম্বরে আছেন নিউ জিল্যান্ডের টম ল্যাথামের সঙ্গে।

প্রায় চার বছর পর সেঞ্চুরি করা দিনেশ চান্দিমালের অগ্রগতি ৯ ধাপ। ১২৪ রানের ইনিংস খেলে আছেন ৪৪তম স্থানে। ওশাদা ফার্নান্দো এগিয়েছেন ১০ ধাপ (৬৭তম)।

ব্যাটসম্যানদের তালিকায় যথারীতি শীর্ষ দুই স্থান অস্ট্রেলিয়ার মার্নাস লাবুশেন ও স্টিভেন স্মিথের। পরের তিন স্থানে আছেন যথাক্রমে নিউ জিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসন, ইংল্যান্ডের জো রুট ও পাকিস্তানের বাবর আজম।

মিরপুর টেস্টে ক্যারিয়ারের ২৯তম ৫ উইকেট নেওয়া সাকিব আগের মতোই বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে আছেন ২৯তম স্থানে। ৪ উইকেট নেওয়া ইবাদত হোসেনের উন্নতি এক ধাপ (৮৪তম)।

লঙ্কানদের সিরিজ জয়ে বড় অবদান রাখা দুই পেসার কাসুন রাজিথা ও আসিথা ফার্নান্দো বোলারদের তালিকায় উপরে উঠে এসেছেন। ম্যাচে ৭ উইকেট নিয়ে রাজিথার অগ্রগতি ১৭ ধাপ, আছেন ৪৪তম স্থানে। বড় লাফ দিয়েছেন আসিথা। ১০ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হওয়া এই পেসার এগিয়েছেন ৪৪ ধাপ (৫২তম)।

বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে আগের মতোই অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স। এরপর যথাক্রমে ভারতের রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও জাসপ্রিত বুমরাহ, পাকিস্তানের শাহিন শাহ আফ্রিদি, নিউ জিল্যান্ডের কাইল জেমিসন। অলরাউন্ডারদের শীর্ষস্থানেও আসেনি পরিবর্তন। ভারতের রবীন্দ্র জাদেজা আছেন চূড়ায়।

You May Also Like

About the Author: