মাত্র পাওয়াঃ সাকিব নয় মুমিনুলের পরিবর্তে টেস্ট অধিনায়ক হচ্ছেন এক তারকা ক্রিকেটার

মাঝ সমুদ্রে প্রচণ্ড ঝড়ে দিক হারা জাহাজের হাল কেবল ধরতে পারেন আত্মবিশ্বাসী একজন নাবিক। তীরে ভিড়িয়ে তিনি হয়ে উঠেন নায়ক। নেতৃত্বগুণ, দক্ষতা ও দল সামলানোর ক্ষমতায় তার মাথায় উঠে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট।

দেশের ক্রিকেটে প্রলয়ঙ্কারী ঝড় হয়েছিল সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞায়। ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করায় আইসিসি তাকে এক বছর সব ধরণের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করে। টেস্ট ক্রিকেটের নেতৃত্ব তখন তার কাঁধে। এ ফরম্যাটে তখন নিয়মিত খেলছেন কেবল মুমিনুল হক। যার নামের পাশে ‘টেস্ট স্পেশালিস্টের’ খেতাবও যুক্ত হয়ে যায়।

বিসিবি তাকেই সাদা পোশাকে অধিনায়ক হিসেবে বেছে নেন। কিন্তু অধিনায়ক হওয়ার জন্য কি মুমিনুল প্রস্তুত ছিলেন? নিজের প্রথম সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল অকপটে বলেছিলেন, ‘সত্যি কথা বলতে কি আমি অধিনায়কত্ব করবো, সেজন্য মোটেও প্রস্তুতই ছিলাম না। কখনো ভাবিওনি বাংলাদেশের অধিনায়ক হবো।’

অপ্রস্তুত সেই অধিনায়কের জন্য এখন অধিনায়কত্ব গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। দুই বছরের ব্যবধানে মুমিনুল এখন ‘খলনায়ক’। দলকে ঠিকঠাক মতো পরিচালনা করতে পারছেন না। তার ব্যাটেও রান খরা। দ্বিমুখী চাপে প্রবলচাপে পিষ্ট মুমিনুল।

অধিনায়ক হিসেবে একাদশে তার জায়গা তো অটোমেটিক চয়েজ। কিন্তু পারফরম্যান্স এতোটাই তলানিতে যে, একাদশে তার জায়গা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। বিসিবি কোনোভাবেই ব্যটসম্যান মুমিনুলকে হারাতে চাইছে না। এজন্য অধিনায়কত্বের পরিবর্তনের ইঙ্গিতও মিলছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা ও ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কা সিরিজে তার ব্যাটে একদমই রান নেই। তাই গুঞ্জন উঠেছিল তার ক্যাম্পেন্সি হারানো নিয়ে। অবশেষে সেই গুঞ্জনই সত্য হতে যাচ্ছে।

একটা গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানা গেছে অধিনায়কত্ব পেতে যাচ্ছেন লিটন কুমার দাশ। যদিও লিটন চেয়েছেন মমিনুল নিজে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানালোর পর তিনি অধিনায়ক হতে রাজি হবেন।

সম্পর্ক খারাপ করতে চান না সুপার লিটন। এই বিষয়গুলো জানিয়েছেন বিসিভি ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।

আগামী ২ জুন জরুরি সভা ডেকেছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, সেদিনই আসতে পারে নতুন সিদ্ধান্ত। লিটনকে অধিনায়ক হলে সহ-অধিনায়ক হিসেবে কার নাম আসবে তা সম্পর্কে এখনো কিছু জানা সম্ভব হয় নি।

You May Also Like

About the Author: