এই পিচে পেসারদের দায়িত্ব নিতে হবে: লিটন দাস

ঢাকা টেস্টে শ্রীলঙ্কার দুই পেসার- কাসুন রাজিথা ও অসিথা ফার্নান্ডোর তোপে বাংলাদেশের টপ অর্ডার ভেঙে পড়ে। মাত্র ২৪ রানে হারায় ৫ উইকেট। এরপর মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের প্রতিরোধে ঘুরে দাঁড়ায় স্বাগতিকরা। সব মিলিয়ে লঙ্কান দুই পেসার ৯ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে ৩৬৫ রানে আটকে দেয়। লঙ্কান পেসাররা আধিপত্য দেখালেও একই উইকেটে বাংলাদেশের দুই পেসার যেন নখদন্তহীন! তৃতীয় দিনে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে পেসারদের দিকেই তাকিয়ে বাংলাদেশ। আজ (মঙ্গলবার) দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন লিটন।

দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৪৩ রান। ২২২ রান পিছিয়ে থেকে তৃতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নামবে সফরকারীরা। আগামীকাল (বুধবার) সকালের সুবিধা কাজে লাগাতে না পারলে ব্যাকফুটে চলে যেতে হবে স্বাগতিকদের। তাই তো বাংলাদেশ তাকিয়ে দুই পেসার খালেদ আহমেদ ও এবাদত হোসেনের দিকে।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে লিটন বলেছেন, ‘এই পিচ পেসারদের জন্য প্রথম দিন ও আজ (দ্বিতীয়) সহায়ক ছিল। স্পিনারদের জন্য এখানে খুব একটা সহযোগিতা ছিল না। তবু আমাদের স্পিনাররা খুব ভালো বল করেছে। আমাদের যে দুজন ফ্রন্টলাইন পেসার আছে, ওদেরকে (খালেদ ও এবাদত) দায়িত্ব নিয়ে বল করতে হবে। যদি উইকেট না-ও আসে রান চেক দিয়ে যেন আমরা ওদের বিপদে ফেলতে পারি। তো ওই জিনিসটার জন্য আমাদের ওয়েট করতে হবে।’

মিরপুর টেস্টের ফল অনেকখানিই নির্ভর করে প্রথম ইনিংসের ওপর। বাংলাদেশ দল বিপর্যয়ে পড়লেও মুশফিক ও লিটনের জোড়া সেঞ্চুরি ভালো সংগ্রহ দাঁড় করাতে পেরেছে। কিন্তু দ্বিতীয় দিন ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ অনেকটাই লঙ্কানদের দিকে হেলে পড়ে। তৃতীয় দিনে বাংলাদেশ দলের লক্ষ্য লঙ্কানদের লিড নিতে না দেওয়া, তেমনটাই শোনালেন লিটন, ‘এখনও শ্রীলঙ্কা অনেকটা পিছিয়ে আছে। আমরা কাল (বুধবার) সকালে যদি একটা-দুইটা উইকেট নিতে পারি, তো অনেকখানি এগিয়ে থাকবো। এখানে প্রথম ইনিংসটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ওরা যদি আমাদের ক্লোজ হয় বা এগিয়ে যায়, তাহলে আমরা ব্যাকফুটে পড়ে যাবো। তো এই ইনিংসে যতখানি লিড নেওয়া যায়, সেই চেষ্টা থাকবে।’

সাধারণত মিরপুরের উইকেটে প্রথম দিন থেকেই আনইভেন্ট হয়ে থাকে। তবে লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্টে প্রথম দুই দিনে সেটি কমই দেখা গেছে। বাংলাদেশ দল অবশ্য আশায় আছে, সময় যত গড়াবে উইকেট তত ভাঙার। এই উইকেটকিপারের বক্তব্য, ‘মিরপুরের যে চেনা রূপ তার চেয়ে এবার পিচটা একটু ভালো। তবে যতদিন যাবে পিচ ভাঙবে।’

You May Also Like

About the Author: