উপরে সুযোগ পেতে সিনিয়রদের দিকে তাকিয়ে লিটন

সাদা পোশাকের ক্রিকেটে ব্যাট হাতে দারুণ ছন্দে রয়েছেন লিটন দাস। ধারাবাহিকভাবে রান করার সঙ্গে বড় ইনিংসও খেলছেন এই উইকেটকিপার ব্যাটার। পারফরম্যান্সে বাংলাদেশের অন্যান্য ব্যাটারদের চেয়ে ঢের এগিয়ে থাকার পরও ছয় কিংবা সাতে ব্যাটিং করতে হচ্ছে লিটনকে। লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিং করার সুবাদে কখনও কখনও সঙ্গীহীন হয়ে পড়ছেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

এমন অবস্থায় অনেকের মাঝেই প্রশ্ন জাগছে, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ব্যাটারকে কেন এত নিচে খেলানো হচ্ছে। লিটন অবশ্য মনে করেন, যেখানে আছেন সেখানেই তিনি ভালো আছেন। সেই সঙ্গে উপরে ব্যাটিং করার জন্য সিনিয়র ক্রিকেটারদের অনুপস্থিতির দিকে তাকিয়ে রয়েছেন এই উইকেটকিপার ব্যাটার।

দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে লিটন বলেন, ‘ধীরে ধীরে আসছে তো। সুযোগ আরও আসবে সামনে। যখন বড় ভাইয়েরা কেউ না কেউ খেলবে না তখন আমাকে সুযোগ দেয়া হবে। এখন আমি দেখছি না উপরে যাওয়ার মতন। যেখানে আছি ভালো আছি।’

প্রথম দিনের খেলা শেষে রাসেল ডমিঙ্গোও জানিয়েছিলেন, ব্যাটিং অর্ডারে নিচের দিকে থাকাটা লিটনকে সহায়তা করছে। সেই সময় ব্যাটিং করলেও চাপ অনেকটা সরে যায় এবং ইতিবাচক ব্যাটিং করতে সহজ হয়। তবে বাংলাদেশের প্রধান কোচ আশ্বাস দিয়ে রেখেছেন, ভবিষ্যতে অবশ্যই চার-পাঁচে ব্যাটিং করবেন লিটন।

ডমিঙ্গো বলেছিলেন, ‘নিজের খেলা সে পরের ধাপে নিয়ে গেছে। আমার মনে হয়, ব্যাটিং অর্ডারের নিচের দিকে থাকাটা তাকে সহায়তা করছে। সামনের সময়ে অবশ্যই সে বাংলাদেশের হয়ে চার বা পাঁচ নম্বরে ব্যাট করবে। ছয়-সাতে খেলতে নামলে, চাপ অনেকটাই সরে যায় তার ওপর থেকে। এখানে নেমে সে অভিপ্রায় দেখাতে পারে, ইতিবাচক ব্যাটিং করতে পারে।’

২৪ রানে ৫ উইকেট পড়ার পর দারুণ এক জুটি গড়ে বাংলাদেশের বিপদ সামাল দেন লিটন ও মুশফিকুর রহিম। তাদের দুজনের অনবদ্য সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত ৩৬৫ রানের পুঁজি পায়। যেখানে তারা দুজনে মিলে গড়েছেন ২৭২ রানের জুটি। চাপেও মাঝে থাকলেও দলকে বড় জুটি দিতে চেয়েছিলেন লিটন।

ষষ্ঠ উইকেটে জুটিতে আরও বাড়ানোর সুযোগ থাকলেও লিটন ফেরায় সেটা হয়ে উঠেনি। তবে এই উইকেটকিপার ব্যাটার মনে করেন, যা হয়েছে সেটা দলের জন্য খুব ভালো। লিটন বলেন, ‘চাপের মাঝে আমি আর মুশফিক ভাই ব্যাটিং করেছি। চাচ্ছিলাম এটা বড় পার্টনারশীপ দেয়ার জন্য। আমার কাছে মনে হয় যতটুকু হয়েছে খুব ভালো দলের জন্য।’

You May Also Like

About the Author: