দেশের জন্য যেকোন ফরম্যাটে খেলতে প্রস্তুত আছি: মোস্তাফিজ

টেস্ট ক্রিকেটে মোস্তাফিজুর রহমানের অনাগ্রহ নতুন নয়। দেশের খেলা বাদ দিয়ে তিনি এখন ব্যস্ত ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল)। তাকে অনাপত্তিপত্র দিলেও বিসিবি এখন তার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে। বিশেষ করে তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম ইনজুরিতে পড়ায় তাকে দলে চাইছে বিসিবি। মোস্তাফিজও জানিয়েছেন দলের প্রয়োজনে ফিরবন তিনি।

কিন্তু মোস্তাফিজকে চাইলেই বিসিবি জোর করতে পারছে না। বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে মোস্তাফিজ কেবল সাদা বলের ক্রিকেটের প্রতি তার আগ্রহ দেখিয়েছে। কোভিডকালীন সময়ে বায়োবাবলে থেকে টেস্ট ক্রিকেট খেলা সম্ভব নয় এমন দাবিতে সরে গিয়েছিলেন।

এর আগে নানা সময়ে বিসিবির আগ্রহ থাকলেও মোস্তাফিজ লাল বলের ক্রিকেট থেকে নিজেকে আড়ালে রেখেছিলেন। খেলেননি ঘরোয়া ক্রিকেটে অনুষ্ঠিত হওয়া প্রথম শ্রেণির দুটি টুর্নামেন্টও। তবে সময়ের সেরা এ পেসারকে একেবারেই ছেড়ে দিচ্ছে না বোর্ড।

টিম ম্যানেজমেন্টের চাওয়ায় তাকে লাল বলের ক্রিকেটে ফেরাতে উৎগ্রীব বিসিবি। এজন্য আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে চিঠি দিয়ে মত জানতে চেয়েছে বিসিবি। শোনা যাচ্ছে বিসিবির পাঠানো চিঠির উত্তরে মোস্তাফিজ টেস্ট ক্রিকেট খেলার ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছেন। তবে যথেষ্ট প্রস্তুতি নিয়ে বাঁহাতি পেসার মাঠে নামতে চাইছেন। এজন্য সময় চেয়েছেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জুনে দুটি টেস্ট খেলার ইচ্ছা নেই। পরবর্তীতে যেকোনো সময় ম্যাচ খেলার আগ্রহ আছে।

এদিকে ইংরেজি দৈনিক নিউ এজ-কে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় মোস্তাফিজ বলেছেন, ‘আমি কখনোই বলিনি আমি টেস্ট খেলতে চাই না। বিসিবির যদি আমাকে প্রয়োজন হয় আমি দলের হয়ে খেলতে প্রস্তুত আছি। দেশের হয়ে খেলতে যেকোনো ফরম্যাটে খেলতেই আমি প্রস্তত আছি।’

আইপিএলে এবার দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে খেলছেন মোস্তাফিজ। তবে ১ মে ২০২২ এর পর আইপিএলে দিল্লী ক্যাপিটালসের হয়ে আর কোন ম্যাচ খেলেননি মুস্তাফিজ। ম্যাচ খেলেছেন মোট ৮টি, বোলিং করেছে ৩২ ওভার।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মোস্তাফিজের টেস্ট অভিষেক ২০১৫ সালে। বাঁহাতি এই পেসার মাত্র ১৪ টেস্ট খেলেছেন। কোভিডের পর বায়ো বাবলের কারণে নির্বাচকদের টেস্ট দলে বিবেচনা করতে মানা করেছেন। এর আগে বিভিন্ন কারণে টেস্ট দলে থাকতে চাইতেন না তিনি।

You May Also Like

About the Author: