আইপিএলে কপাল খুলছে ৮ বাংলাদেশী ক্রিকেটারের!

সারাবিশ্বে চলা ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-২০ টুর্নামেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম সেরা আসর হচ্ছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ বা আইপিএল। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক এই টুর্নামেন্টে বিশ্বের সব তারকা ক্রিকেটাররা বিভিন্ন দলের হয়ে অংশ নিতে দেখা যায়।

ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজের যে পরিমানে ক্রিকেটাররা অংশ নিয়ে থাকেন আইপিএলে সেই অনুসারে বাংলাদেশী ক্রিকেটারদের দেখা যায় না।

আইপিএলে সাকিব আল হাসান কিংবা মুস্তাফিজুর রহমানরা খেলার সুযোগ পেলেও টুর্নামেন্টের অন্যতম দল রাজস্থান রয়্যালসের চেয়ারম্যান রঞ্জিত বারঠাকুর জানালেন আইপিএলের প্রতি দলেই যেন অন্তত একজন বাংলাদেশী ক্রিকেটাররা খেলার সুযোগ পান।

বাংলাদেশী ব্যাটিং, বোলিং কিংবা অলরাউন্ডাররাই আইপিএলের বড় একটা অংশ দখল করতে পারেন বলে মনে করেন রঞ্জিত। গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘’আমি নির্দিষ্ট কোনো খেলোয়াড়ের নাম বলব না।

তবে এখানে অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে বেঙ্গলে। বেঙ্গলের পর বাংলাদেশেও। স্পিন ও ব্যাটিং অলরাউন্ডারের জন্য বাংলাদেশ হতে পারে আইপিএলের মূল উৎস। আরও ৪-৫ জনকে যদি আমরা নিতে পারি এখান থেকে খুব ভালো হত।‘’

আইপিএলের প্রতিটি দলে চারজন করে বিদেশি ক্রিকেটার একাদশে থাকতে পারেন। প্রতিটি দলে অন্তত একজন করে বাংলাদেশী ক্রিকেটার নেয়া হলেও আরও ৮ জন ক্রিকেটার আইপিএলে সুযোগ পেতে পারে বলে মনে করেন রাজস্থান রয়্যালসের চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, ‘’আইপিএলের সীমাবদ্ধতাগুলোর একটা হল চারজন বিদেশি নেওয়া যায়। ৮টা দল একটা করে বাংলাদেশের খেলোয়াড় নিলেও ৮ জন বাংলাদেশের খেলোয়াড় থাকা উচিত। কারণ পাকিস্তান তো নেই।‘’

পেসার মুস্তাফিজুর রহমানকে আগামী আসরের জন্য দলে নিয়েছে রাজস্থান। বাংলাদেশের ক্রিকেটে পেসারদেরও ভালো অবস্থান রয়েছে বলে মনে করেন তিনি। ‘’এখানকার স্পিনার ও অলরাউন্ডাররা বেশ উৎসাহ দেওয়ার মত। মুস্তাফিজ খুবই ভালো মানের পেসার। আমরা লক্ষ্য করলাম পেসাররা নতুন ট্রেন্ড হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, আইপিএলের ১৪তম আসরের নিলামে নাম ছিল বেশ কয়েকজন বাংলাদেশী ক্রিকেটারের। মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনদের নাম থাকলেও তাদের নাম তোলা হয়নি নিলামে।

তবে রাজস্থান চেয়ারম্যানের ভাষ্যমতে যদি ভবিষ্যতে বাংলাদেশী ক্রিকেটারদের সংখ্যা বাড়ে আইপিএলে তাহলে হয়ত দেশের অভিজ্ঞ আরকাদের দেখা যেতে পারে আইপিএলে।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment