অধিনায়কত্বসহ নিজের ব্যাটিং দিয়ে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছেন ইমরুল দলে না নিলে হবে ভুল

Untitled design 2022 04 16T191047.176

দেশের সবচেয়ে অভাগা ক্রিকেটার বোধহয় তিনি। যাকে দলে না নেওয়াই যেন খবরের শিরোনাম। কথা বলা হচ্ছে ইমরুল কায়েসকে নিয়ে। জাতীয় দলে আবার সুযোগ পাবেন কিনা তার কোন নিশ্চয়তা নেই। তবে এত কিছু ভাবার বোধ হয় সময় নেই এই ব্যাটসম্যানের। তার কাজ যে শুধুই পারফর্ম করে যাওয়া। গতকাল গাজী গ্রুপ এর বিপক্ষে ৬১ রান করেন এই ব্যাটসম্যান।

৮৯ বল ৬১ রান করা এই ইনিংসে ইমরুলের স্ট্রাইক রেট ছিল ৬৮। স্কোরকার্ড দেখে যথেষ্ট সাদামাটা একটি ইনিংস মনে হতেই পারে। তবে যে উইকেটে ইমরুল ইনিংসটি খেলেছেন তা ছিল এককথায় আনপ্লেয়েবল। ইমরুলের দলে সোহান এবং রবিউল ছাড়া আর কেউ ২০ এর কোটাই পার করতে পারেনি। সে দিক দিয়ে হিসাব করলে এক প্রান্ত আগলে রেখে ৬১ রান করে বেশ ভালো পারফর্ম করেছেন ইমরুল।

শুধু এই ম্যাচ নয় পুরো টুনামেন্ট জুড়েই ব্যাট দিয়ে পারফর্ম করার পাশাপাশি ক্যাপ্টেন্সি দিয়েও মুগ্ধ করছেন সবাইকে। তার দল গাজী গ্রুপ এবারে প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষে অবস্থান করছেন। বিপিএলের পর এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের ট্রফিটাও ইমরুল ছুঁতে পারেন কিনা এটাই এখন দেখার পালা। তবে ইমরুল যত যাই করুক না কেন তাকে সুযোগ দেয়া হবে না এ পরিকল্পনাই যেন করে রেখেছেন নির্বাচকেরা।

তা না হলে ইমরুলের এ ধরনের পারফরম্যান্স এবং অধিনায়ক এর চাওয়ার পরও কেন দলে ডাকা হবে না এ ব্যাটসম্যানকে। ইমরুল আবার জাতীয় দলে পারফর্ম করবে এর কোনো নিশ্চয়তা নেই। তবে একবার সুযোগ কি পেতে পারেন না এ ব্যাটসম্যান। নির্বাচকরা ছাড়া সম্ভবত সবাই মনে করেন একটি হলেও সুযোগ প্রাপ্য ইমরুলের। ওয়ানডেতে টাইগারদের নাম্বার ফাইভ পজিশনটা এখনো থিতু নয়।

নাম্বার ফাইভ এর জন্য ইমরুলকে কমপক্ষে রাডারে রাখতেই পারতেন নির্বাচকেরা। অধিনায়ক তামিম ইকবাল বেশ কয়েকবার সংবাদমাধ্যমে বলেছেন ইমরুল তার ২০২৩ বিশ্বকাপ পরিকল্পনার অংশ। তবে অধিনায়ক এর কথার কোন গুরুত্ব না দিয়ে নির্বাচকেরা নিজেদের মতো করেই দল দিয়েছেন। দল সাজানো অবশ্যই নির্বাচকদের কাজ তবে পৃথিবীর সব দেশেই এক্ষেত্রে অধিনায়ক এর পরামর্শ নেওয়া হয়। বাংলাদেশই হয়তোবা ব্যতিক্রমী। ইমরুলক দলে ফিরবেন কি না তা সময় বলে দিবে, তবে না ফিরলেও হয়তো ইমরুলের কোন আক্ষেপ থাকার কথা নয় তিনি যে তার কাজটি ঠিকই করে যাবেন।

You May Also Like