অধিনায়ক হিসেবেও কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সদের টপকে ‘বিশ্বসেরা’ বাবর আজম

অধিনায়ক হিসেবেও কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সদের ছাড়িয়ে ওয়ানডেতে ‘বিশ্বসেরা’ ব্যাটিং গড় বাবর আজমের। ঘরের মাঠে ৪০ বছর পর এবং সবমিলিয়ে ২০ বছর বাদে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে পাকিস্তান।

যেখানে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন অধিনায়ক বাবর আজম। তিন ম্যাচের সিরিজে এক ফিফটি আর দুই সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৭৮ রান করে সিরিজ সেরাও হয়েছেন তিনি। ৩১৪ রান তাড়ায় প্রথম ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৭২ বলে ৫৭ রানের ইনিংস খেলে সমালোচিত হয়েছিলেন বাবর আজম, হেরেছিলো দল। তবে পরের ম্যাচেই ব্যাট হাতে সমালোচনার জবাব দিয়ে রান তাড়ার নতুন রেকর্ড গড়ে-

পাকিস্তানের ঐতিহাসিক জয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি, খেলেছিলেন ৮৩ বলে ১১৪ রানের দুরন্ত ইনিংস। লাহোরে সিরিজ নির্ধারণী শেষ ওয়ানডেতেও বজায় ছিল বাবরের আধিপত্য। অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের রীতিমতো শাসন করে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ১২ চারে ১১৫ বল মোকাবিলায় ১০৫* রানের নিখুঁত ইনিংস খেলে শনিবার দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন পাকিস্তানের কাপ্তান।

এমন দুর্দান্ত ব্যাটিং প্রদর্শনীতে ওয়ানডে ক্রিকেটে ব্যাটিং গড়ে বিশ্বের সবাইকে ছাপিয়ে গেছেন বাবর আজম। এমনকি শুধু অধিনায়ক হিসেবে বিবেচনা করলেও ‘বিশ্বসেরা’ পাকিস্তানের কাপ্তান। ওয়ানডে ক্রিকেটে অন্তত দশ ম্যাচে দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন এমন অধিনায়কদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যাটিং গড় বাবর আজমের। যেখানে তিনি পিছনে ফেলেছেন ভারতের বিরাট কোহলি, নিউজিল্যান্ডের টম ল্যাথাম এবং দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডি ভিলিয়ার্সদের মতো তারকাদের।

পাকিস্তানের অধিনায়ক হিসেবে এখন পর্যন্ত খেলা ১২ ওয়ানডেতে ৯০.২০ গড় আর ১০৪.৬৪ স্ট্রাইক রেটে ৯০২ রান করেছেন বাবর আজম। যেখানে এই তালিকার দুই নম্বরে থাকা বিরাট কোহলির ব্যাটিং গড় ৭২.৬৫, রান সংখ্যা ৫৪৪৯, স্ট্রাইক রেট ৯৮.
অধিনায়ক হিসেবে ওয়ানডে ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ব্যাটিং গড় (অন্তত ১০ ইনিংস):

৯০.২ – বাবর আজম (১০৫ স্ট্রাইক রেট); ৭২.৭– বিরাট কোহলি (৯৮ স্ট্রাইক রেট); ৭২.৫ – টম ল্যাথাম (৯৬ স্ট্রাইক রেট)
৬৩.৯ – এবি ডি ভিলিয়ার্স (১১০ স্ট্রাইক রেট); ৬২.১ – রোহিত শর্মা (৯৮ স্ট্রাইক রেট)

x

You May Also Like