সাকিব খেলতে চায় কি না; এ বিষয়ে জানতে চাইবে বিসিবি

বাংলাদেশ ক্রিকেটে আলোচনার সিংহভাগ জুড়ে থাকেন সাকিব আল হাসান। ক্রিকেট মাঠ কিংবা মাঠের বাইরে, সবখানেই আলাদা দৃষ্টি সাকিবের উপর। বাংলাদেশ বনাম আফগানিস্তান সিরিজ চললেও আলোচনায় টাইগার অলরাউন্ডার। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে দল না পাওয়া সাকিব কি দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের টেস্ট সিরিজ খেলবেন? বোর্ড চাইছে সাকিব খেলুক। কিন্তু সাকিবের খেলা আর না খেলার বিষয়টি চূড়ান্ত হয়নি।

বর্তমান সময়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটকে প্রাধান্য দিচ্ছেন সাকিব। আইপিএল খেলতে জাতীয় দল থেকে ছুটি নেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। বিশেষ করে টেস্ট ফরম্যাটেই বেশি অনীহা সাকিবের। আগামী বছরের জন্য কেন্দ্রীয় চুক্তিতে যাওয়ার আগে, সাকিবের কাছে এক বছরের পরিকল্পনা চাইবে ক্রিকেট বোর্ড।

চট্টগ্রামে সংবাদমাধ্যমকে বোর্ডের ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেন, ‘শুধু দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ না, ওভারঅল। বেসিক্যালি আমরা তার কাছে এক বছরের প্ল্যান চাইবো।’ যোগ করেন জালাল, ‘বোর্ড তো চাইবে সে খেলুক। সে ওয়ান অব দ্য ফাইনেস্ট অলরাউন্ডার আমরা তো চাইবো সে যেন খেলে। এখনও পর্যন্ত কেউ যদি পরিষ্কার করে না বলে তাহলে কিভাবে বলব। কেউ যদি বলে এই সিরিজে খেলবো অন্য সিরিজে খেলবো না, এই ফরম্যাটে খেলবো অন্য ফরম্যাটে খেলবো না, এটা তো তাদেরকেও তাদের চিন্তা থেকে পরিষ্কার করতে হবে।’

জালালের কাছে প্রশ্ন রাখা হয়, বোর্ডের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারারা চাইলে কী যখন তখন ছুটি নিতে পারেন? জালালের ব্যাখ্যা, ‘এটা (বিসিবি) তো সেই ধরনের অর্গানাইজেশন না। দয়া করে তাদেরকে আমাদের কর্মী হিসাবে কনসিডার করবেন না। তারাও ক্রিকেটের একটি স্টেকহোল্ডার। হ্যাঁ, চুক্তি অনুযায়ী বাইন্ডেড থাকে, তবে সব যে হার্ড থাকে তা তো না। সমস্যা থাকলে বলতেই পারে। ডিসিশনটা হলো আমাদের, যে আমরা কিভাবে নিব। সে যদি চাই নির্দিষ্ট সময় টেস্ট খেলব, সেই স্বাধীনতা কি তার নাই? বলতে পারে। লেট আস সি, যে কি জানায়।’

সম্প্রতি একটি সংবাদ মাধ্যমে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। সেখানে পাপন বলেন, ৬ মাস টেস্ট থেকে ছুটি চেয়ে বোর্ডকে চিঠি দিয়েছেন সাকিব। বোর্ড সভাপতির সাক্ষাৎকার থেকে এ তথ্য আসায় এ নিয়ে আলোচনার ঝড় শুরু হয় দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে। যদিও বোর্ড থেকে বিষয়টি নাকচ করে দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় সাকিব টেস্ট খেলবেন কিনা সেটি চলমান আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের পরেই জানা যাবে।

জালাল বলেন, ‘সাকিব একটা চিঠি দিয়েছিল আমাদের যে ৬ মাসের জন্য খেলবে না। টেস্ট থেকে অব্যাহতি চেয়েছে। কিন্তু সেটা আইপিএল অকশনের আগে। এরপরে আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করা হয়েছিল যে সে শ্রীলঙ্কা সিরিজে খেলবে, দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে টেস্ট খেলার কথা ছিল না। এখন আইপিএলে যেহেতু যাচ্ছে না তো দৃশ্যপট পরিবর্তন হয়েছে, সে বলেছে কালকে বা এই সিরিজের পরই এখানকার ওডিআই সিরিজের পরই প্রেসিডেন্ট স্যারের সঙ্গে বসবে, কথা বলবে তো আমাদের ওই পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।’

You May Also Like