ব্রেকিং নিউজঃ আফগানিস্তানকে হারিয়ে আইসিসি সুপার লিগে ১০ পা এগিয়ে গেল বাংলাদেশ

ধ্বংসস্তূপ থেকে ফিরিয়েছেন দলকে, গড়েছেন রেকর্ড জুটি। সপ্তম উইকেটে বাংলাদেশের আগের রেকর্ড (১২৭) টপকে নতুন রেকর্ড (১৭৪) গড়লেন আফিফ হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

তাদের ব্যাটে চেপে জয়ের হাসি হাসল টাইগাররা। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে আফগানিস্তানের দেওয়া ২১৬ রানের টার্গেট টপকে ৪ উইকেটের জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামা আফগানিস্তান দল বাংলাদেশকে ২১৬ রানের লক্ষ্য বেধে দিলে জয়ের জন্য খেলতে নেমে শুরু থেকেই বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা। তবে মেহেদি হাসান মিরাজ ও আফিফ হোসেন ধ্রুবর দুর্দান্ত এক জুটিতে ৪ উইকেটের জয় পায় টাইগাররা। এই জয়ের মধ্য দিয়ে চলমান ওয়ানডে বিশ্বকাপ সুপার লিগে আরও ১০ পয়েন্ট পেয়েছে বাংলাদেশ।আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ শেষে দেখে নেয়া যাক বিশ্বকাপ সুপার লিগের পয়েন্ট টেবিলের সর্বশেষ অবস্থা।

ওয়ানডে সুপার লিগের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে বর্তমানে রয়েছে ইংল্যান্ড। সুপার লিগে ১৫টি ম্যাচ খেলা ইংল্যান্ড এখন পর্যন্ত ৯টি ম্যাচে জয় ও ৬ ম্যাচে হার এবং এক ম্যাচ বাতিল হয়ে যাওয়ার কারনে ইংল্যান্ডের নামের পাশে এখন পর্যন্ত রয়েছে ৯৫ পয়েন্ট।পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বরে থাকা বাংলাদেশ দল এখন পর্যন্ত সুপার লিগে খেলেছে ১৩টি ম্যাচ। যেখানে আজকের ম্যাচ সহ মোট জিতেছে ৯ ম্যাচে। বাকি চার ম্যাচে হারের কারনে টাইগারদের

নামের পাশে রয়েছে ৯০ পয়েন্ট। আফগানদের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে জিততে পারলেই টাইগাররা উঠে যাবে পয়েন্ট টেবিলের একদম শীর্ষে।পয়েন্ট টেবিলের তিন নম্বরে থাকা দলটি হচ্ছে ভারত। এখন পর্যন্ত তারা খেলেছে ১২টি ম্যাচ। যেখানে তাদের নামের পাশে ৯টি জয় থাকলেও তাদের নামের পাশে রয়েছে ৭৯ পয়েন্ট।চার নম্বরে থাকা আয়ারল্যান্ড ওয়ানডে বিশ্বকাপের সুপার লিগে এখন পর্যন্ত খেলেছে ১৮টি ম্যাচ। ৬টি জয় ১০টি

হার ও ২ ম্যাচ বাতিল হয়ে যাওয়ায় আয়ারল্যান্ডের নামের পাশে এখন রয়েছে ৬৮ পয়েন্ট।পাঁচ নম্বরে রয়েছে শ্রীলঙ্কা। ১৮ ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের সমান ৬ ম্যাচে জয়লাভ করলেও ডিমেরিট পয়েন্ট থাকায় লঙ্কানদের নামের পাশে
এখন রয়েছে ৬২ পয়েন্ট। ছয় নম্বরে থাকা আফগানিস্তান দল এখন ৭ ম্যাচের মধ্যে ৬টিতেই জয় পেলেও বাংলাদেশের বিপক্ষে আজকের ম্যাচে হারের পর তাদের নামের পাশে রয়েছে ৬০ পয়েন্ট। সাত নম্বরে থাকা অস্ট্রেলিয়া ৯ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট, আট নম্বরে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৫ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট, নয় নম্বরে থাকা পাকিস্তান ৯ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট, দশ নম্বরে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট অর্জন করেছে।

You May Also Like