ক্রিকেট থেকে অবসরের দিনক্ষন জানালেন তামিম

তার টি-টোয়েন্টি খেলা নিয়ে নানা কথাবার্তা এতদিন ঘুরছিল মিডিয়া এবং ক্রিকেট পাড়ায়। কিন্তু মূল বক্তব্যটা যতক্ষণ না তামিমের মুখ থেকে আসছিল না, ততক্ষণ কারো স্বস্তি মিলছিল না। অবশেষে আজ মিডিয়ার সামনে এসে তামিম জানিয়ে দিলেন, আগামী ৬ মাস তিনি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি নিয়ে ভাববেন না।

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে খেলা না খেলা নিয়ে নানান কথার মধ্যেই জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক জানিয়ে দিলেন, এখন তার বয়স চলছে ৩৩ বছর। আরও অন্তত ৪ থেকে ৫ বছর তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে পারবেন, এমনকি সব ফরম্যাটেই।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে মিডিয়ার মুখোমুখি হয়ে তামিম ইকবাল ঘোষণা দেয়ার পর তার কাছে প্রশ্ন ছিল, ‘সাধারণত দেখা যায়, এই সময়ে ক্রিকেটাররা একটু সিনিয়র হলে টেস্ট এবং ওয়ানডে কম খেলেন। টি-টোয়েন্টিতে থাকেন বেশি। কিন্তু আপনি করছেন উল্টোটা। এটা কেন?’
জবাবে তামিম বলেন, ‘আপনার এ কথাটা একদম ঠিক না ভায়া। অনেক ক্রিকেটারই টি-টোয়েন্টি আগে ছেড়েছেন। বড় বড় ক্রিকেটাররা এ কাজ করেছেন। অনেকেই আছেন। আর দেখেন, ওয়ানডে আমাদের বাংলাদেশে সবচেয়ে প্রিয় ফরম্যাট। সব ফরম্যাটই আমাদের প্রিয়, তবে ওয়ানডেটা একটু বেশি।

ওয়ানডে আমিও খেলতে খুব বেশি ইনজয় করি। আর টেস্ট এমন একটা ক্রিকেট, যখন থেকে ক্রিকেটের ব্যাট ধরা শুরু করেছি তখন থেকে দুটো ইচ্ছা ছিল, এক হচ্ছে – বাংলাদেশ দলের হয়ে খেলবো। দ্বিতীয় ইচ্ছা ছিল টেস্ট ক্রিকেটার হবো।’
টেস্ট ক্রিকেট যতদিন সম্ভব খেলে যাওয়ার ইচ্ছা তামিমের। তিনি বলেন, ‘আপনারা সবাই জানেন যে, টেস্ট ক্রিকেটের ভ্যালু বা মূল্যটা কোন জায়গায়। টেস্টে আমরা হয়তো এত স্ট্রং কোনো দল নই। তবে টেস্টে একটা ফিফটি কিংবা একটা সেঞ্চুরি করা- এটার মূল্যটা অন্যরকম। সুতরাং, টেস্ট ক্রিকেট আমি যতদিন সম্ভব খেলে যেতে চাই।’

‘সাথে আরেকটা বিষয় যোগ করি, আমি ৩৩ বছর বয়সী। ৩৪-৩৫ বছর বয়সেও বিশ্বক্রিকেটে অনেকের অভিষেক হয়। তারা ৩৮-৩৯ কিংবা ৪০ পর্যন্ত খেলে। সুতরাং, এখনও আমি অন্তত ৪-৫ বছর সব ফরম্যাটেই ক্রিকেট চালিয়ে যেতে পারবো। যতটুকু সম্ভব সার্ভ করতে পারি বাংলাদেশকে, আমার পারফরম্যান্স এবং ফিটনেস যদি আল্লাহ ঠিক রাখেন, তাহলে অন্তত ৪-৫ বছর আমি ক্রিকেট চালিয়ে যেতে পারবো।’

You May Also Like

About the Author: