খুলনা টাইগার্সের সবচেয়ে খরচ কম হলেও যে কারণে টিম শক্তশালী

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অষ্টম আসরে খুলনা অঞ্চলের প্রতিনিধিত্ব করে অংশ নিচ্ছে খুলনা টাইগার্স। অন্যান্য দলের চেয়ে খুলনাকে নিয়ে মাতামাতি কম হলেও মাঠের লড়াইয়ে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠতে পারে দলটি।
প্লেয়ার্স ড্রাফটে খুলনা সবচেয়ে কম অর্থ খরচ করেছে। ২ কোটি ৮২ লাখ টাকা খরচ করে যে দল গড়া হয়েছে, তা অবশ্য কম শক্তিশালী নয়।

ড্রাফটের আগেই সরাসরি চুক্তিতে দলে নেওয়া হয় মুশফিকুর রহিমকে; বিদেশিদের মধ্যে ভরসা করা হয় শ্রীলঙ্কার থিসারা পেরেরা ও ভানুকা রাজাপক্ষে এবং আফগানিস্তানের নাভিন উল হকের ওপর। ড্রাফট থেকে শ্রীলঙ্কার সেক্কুগে প্রসন্ন ও জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজাকেও দলভুক্ত করে খুলনা।
যদিও পেরেরা ছাড়া বাকি লঙ্কানদের এনওসি প্রাপ্তি নিয়ে সংশয় রয়েছে। খুলনা তাই হাত বাড়িয়েছে দেশি ক্রিকেটারদের দিকে।

ড্রাফটের পর খুলনা দলে নেয় দুই অলরাউন্ডার সোহরাওয়ার্দী শুভ ও মোহাম্মদ শরীফউল্লাহকে। তার আগে ড্রাফটে খুলনা দলে ভিড়িয়েছে শেখ মেহেদী হাসান, সৌম্য সরকার, কামরুল ইসলাম রাব্বি, ইয়াসির আলী চৌধুরী রাব্বি, ফরহাদ রেজা, রনি তালুকদার, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, জাকের আলি অনিক ও নাবিল সামাদকে। তারুণ্য ও অভিজ্ঞতা দুই-ই তাই আছে সুন্দরবনের কোল ঘেঁষা খুলনায়।

খুলনাকে আগেও প্রতিনিধিত্ব করেছেন মুশফিক, এবারও তিনি দলের তুরুপের তাস।
খুলনা তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে উদ্বোধনী দিনে, মিনিস্টার ঢাকার বিপক্ষে। মিরপুরে ম্যাচটি শুরু হবে ২১ জানুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়।

একনজরে খুলনা টাইগার্সের স্কোয়াড

সরাসরি চুক্তি

মুশফিকুর রহিম, থিসারা পেরেরা (শ্রীলঙ্কা), ভানুকা রাজাপক্ষে (শ্রীলঙ্কা) ও নাভিন উল হক (আফগানিস্তান)।

ড্রাফট থেকে

শেখ মেহেদী হাসান, সৌম্য সরকার, কামরুল ইসলাম রাব্বি, ইয়াসির আলী চৌধুরী রাব্বি, সেক্কুগে প্রসন্ন (শ্রীলঙ্কা), সিকান্দার রাজা (জিম্বাবুয়ে), ফরহাদ রেজা, রনি তালুকদার, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, জাকের আলী অনিক ও নাবিল সামাদ।
ড্রাফটের পর
সোহরাওয়ার্দী শুভ ও মোহাম্মদ শরীফউল্লাহ।

You May Also Like