মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার যেন সুপারস্টারদের মিলনমেলা

যে দলটির মালিকানা নিয়ে প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগেই সৃষ্টি হয় নাটকীয়তা, সেই মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকাই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অষ্টম আসরে অন্যতম শক্তিশালী দল। জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান মিনিস্টার গ্রুপের মালিকানায় এবার ঢাকা বিপিএলে অংশ নেবে বেশ কয়েকজন সুপারস্টারকে নিয়ে। বিপিএল শুরুর আগে জেনে নেওয়া যাক মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার আদ্যোপান্ত।

মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার মালিকানা পেয়েছে বেশ নাটকীয়ভাবে। প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগের দিন জানানো হয়, শর্ত পূরণ করতে না পারায় ঢাকার মালিকানা নিতে চাওয়া প্রতিষ্ঠানকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এরপর বিসিবির অধীনেই সম্পন্ন হয় প্লেয়ার্স ড্রাফট।

ড্রাফটের আগে ৩ জন বিদেশি ও ১ জন দেশি খেলোয়াড়কে সরাসরি দলভুক্ত করার সুযোগ ছিল। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ঢাকা দলে নেয় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ইসুরু উদানা, কাইস আহমেদ ও নাজিবউল্লাহ জাদরানকে।

মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার দলটি মূলত গুছিয়ে দিয়েছে বিসিবি। টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ড্রাফট থেকে দলে নেন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। ড্রাফটের পর আরও এক সুপারস্টারকে দলে নেয় ঢাকা। তিনি ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল।

রাসেল অবশ্য শুরুর কয়েকটি ম্যাচে অংশ নেবেন, থাকবেন না পুরো আসরজুড়ে। ড্রাফট থেকে বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে দলে ভেড়ানো হয়েছে আফগানিস্তানের মোহাম্মদ শাহজাদ ও ফজল হক ফারুকীকে।

তামিম ও মাশরাফি ছাড়াও দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে ড্রাফটে ঢাকা দলভুক্ত করে রুবেল হোসেন, শুভাগত হোম চৌধুরী, নাঈম শেখ, আরাফাত সানি, ইমরান উজ জামান, শফিউল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, শামসুর রহমান ও এবাদত হোসেন চৌধুরীকে। ড্রাফট শেষে নেওয়া হয় আলোচিত লেগ স্পিনার রিশাদ হোসেনকে।

দল সাজাতে প্লেয়ার্স ড্রাফটে ঢাকা খরচ করে ৪ কোটি ১ লাখ টাকা, যা দলগুলোর খরচের দিক থেকে তৃতীয় সর্বোচ্চ। ২১ জানুয়ারি উদ্বোধনী দিনে ঢাকা তাদের প্রথম ম্যাচ খেলবে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দলটি পাবে হোম ভেন্যুর স্বাদ।

একনজরে মিনিস্টার ঢাকার স্কোয়াড
ড্রাফটের আগে সরাসরি চুক্তি : মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, ইসুরু উদানা (শ্রীলঙ্কা), কাইস আহমেদ (আফগানিস্তান) ও নাজিবুল্লাহ জাদরান (আফগানিস্তান)।

ড্রাফট থেকে : তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, শুভাগত হোম চৌধুরী, মোহাম্মদ শাহজাদ (আফগানিস্তান), ফজল হক ফারুকী (আফগানিস্তান), নাঈম শেখ, আরাফাত সানি, ইমরান উজ জামান, শফিউল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, শামসুর রহমান ও এবাদত হোসেন চৌধুরী।
ড্রাফটের পর : রিশাদ হোসেন ও আন্দ্রে রাসেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)।

You May Also Like