অপেক্ষা এখন হোয়াইটওয়াশের

প্রত্যাবর্তনের সিরিজে নবাবের মতোই পারফর্ম্যান্স করলেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশ এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৭ উইকেটের জয় টাইগারদের। উইন্ডিজের দেয়া ১৪৯ রানের টার্গেট হেসেখেলেই টপকাবে বাংলাদেশ, এটা জানা কথা। তাই হয়েছে। ১৬ ওভার চার বল হাতে রেখেই ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছেন তামিম ইকবাল। আর সাকিব আল হাসান ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন। অপরাজিত ছিলেন ৪৩ রানে। তবে তিন নাম্বারে নামা নাজমুল হোসেন শান্তু পরপর দুই ম্যাচে সুপার ফ্লপ। আগের ম্যাচে শূন্যতে আউট হওয়া শান্ত এই ম্যাচে করেন ১৭ রান। দুই ম্যাচে তাঁর বাজে ফর্ম পরের একাদশে থাকাটাই প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে। এছাড়া ওপেনার লিটন দাস করেন ২২ রান। চার উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। এই জয়ে বাংলাদেশ বিশ্বকাপ সুপার লিগের পয়েন্ট তালিকার তিন নাম্বারে। দুই ওয়ানডে খেলে তালিকায় বাংলাদেশ যোগ করেছে ২০ পয়েন্ট।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিং নেয় উইন্ডিজ। বলা যায় ক্যারিবিয়ানরা দিনের শুরুটা করেছিল ভুল সিদ্ধান্তে। কুয়াশা ঢাকা মিরপুরের উইকেট না বুঝার মাশুল গুনতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের। প্রথম ওয়ানডের মতো এই ম্যাচেও বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু দেন মোস্তাফিজ। ওপেনার সুনিল অ্যাম্ব্রিসকে ৬ রানেই বিদায় করেন। মেহেদী মিরাজকে ক্যাচ দেন এই ক্যারিবিয়ান।

এরপর মিরাজের স্পিন ভেল্কি। জোড়া উইকেট তুলে নিয়ে পাওয়ার প্লেতেই উইন্ডিজের পাওয়ার শেষ করেন মিরাজ। নিজের তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই শিকার করেন ওটলেকে। চতুর্থ বলে বলে বোল্ড করেন জশুয়া সিলভাকে। বোলিংয়ে সাকিব এসেই ঝলক দেখান। নিজের প্রথম ওভারের শেষ বলে উইকেট নেন। উইন্ডিজের স্কোর তখন চার উইকেটে ৩৯ রান।

ব্যাটিংয়ে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ক্যারিবিয়ানরা। ম্যাচে এক সময় মনে হয়েছিল শতরানের আগেই অলআউট হবে সফরকারী দল। এরপর প্রথম ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রান করা কাইল মেয়ার্সকে হারিয়ে আরো বিপদে পড়ে উইন্ডিজ। শূন্যতেই বিদায় নেন তিনি। অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ এবং এনক্রুমা বনার থিতু হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু সাকিবের ঘূর্ণিতে এই জুটি ভাঙ্গে। ১১ রানে আউট হন জেসন। আর বনারকে থামান পেসার হাসান মাহমুদ। উইকেট তুলে নেয়ায় সাকিবের সাথে মধুর লড়াই হয়েছিল মিরাজের। সেখানে রেইফারকে শিকার করে ছাড়িয়ে যান সাকিবকে।

নবম উইকেটে আলজারি জোসেফকে নিয়ে রোভম্যান পাওয়েল ইনিংস সর্বোচ্চ পার্টনারশিপ গড়েন। এই জুটি জমা করে ৩৭ রান। তাদেরকে বিচ্ছিন্ন করেন মোস্তাফিজ। ১৭ রানে আউট জোসেফ। আগের ম্যাচে সাকিবের আলোতে ঢাকা পড়েছিলেন মিরাজ। এবার ইনিংস শেষে ঝলমলে হয়ে থাকলেন। পাওয়েলকে ৪১ রানে থামিয়ে উইন্ডিজকে দেড়শো করতে দেননি এই স্পিনার। তখনও বাকি ছিল ৬ ওভার দুই বল। মিরাজ ২৫ রান দিয়ে নিয়েছেন চার উইকেট। সাকিব ও মোস্তাফিজ নেন দুটি করে উইকেট।

এই জয়ে সিরিজ নিশ্চিত হয়েছে বাংলাদেশের। এবারে লক্ষ্য উইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করা। ২৫ জানুয়ারি সিরিজের তৃতীয় এবং শেষ ওয়ানডেতে চট্টগ্রামে মুখোমুখি হবে দু’দল।

সংশ্লিষ্ট খবর

Leave a Comment