বুন্দেসলিগার শিরোপা রেস থেকে আরও পেছাল বরুশিয়া ডর্টমুন্ড

আর্লিং হ্যালান্ডের জোড়া গোলও হার এড়াতে পারলো না ডর্টমুন্ডের। নিকো এলভেদির জোড়া গোলে বরুশিয়াকে ৪-২ গোলে হারালো মনশেনগ্লাডবাখ।

Advertisements
শিরোপা রেস থেকে খানিকটা ছিটকে গেছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। এডিন টারজিচের দলের সামনে সুযোগ ছিলো শীর্ষে থাকা বায়ার্ন মিউনিখের সঙ্গে ব্যবধান কমানোর।
ডর্টমুন্ড আর মনশেনগ্লাডবাখের ম্যাচ ম্যানেই উত্তেজনা। গেলো ৮ বছর কোনো ম্যাচ শেষ হয়নি অমিমাংসিত ভাবে। এই দু’দলের কোনো ম্যাচ গোলশূণ্য ভাবে শেষ হয়েছিলো সবশেষ ২৭ বছর আগে। তাই গোল উৎসবের অপেক্ষায় ছিলো সবাই।

Advertisements
হয়েছেও তাই। বরুশিয়া পার্কে দু’দলই নিয়মিত বেশ ক’জনকে ছাড়াই মাঠে নামে। তারপরও গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। ১১ মিনিটে মনশেনগ্লাডবাখ এগিয়ে যায় সুইস সেন্টার ব্যাকে নিকো এলভেদির গোলে।
শুরুতে গোল খেয়ে বসার প্রতিউত্তরটা ভালোভাবেই দিয়েছেন ডর্টমুন্ড। ২২ আর ২৮, ৬ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করেন ডর্টমুন্ডের গোলমেশিন আর্লিং হ্যালান্ড। চলতি মৌসুমে সব মিলিয়ে এরই মধ্যে ২১ গোল করেছেন এই নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকার।
সমতা আনতে দেরি করেনি মনশেনগ্লাডবাখ। ৩২ মিনিটে আবারো গোল নিকো এলভেদির।
দ্বিতীয়ার্ধ্বের শুরুতে আবারো গোল বরুশিয়া পার্কে। র্যারমি বেনসেবাইনির গোলে ৩-২ ব্যবধানে লিড পায় মনশেনগ্লাডবাখ।
সমতা আনতে প্রানপণ চেষ্টা করে গেছে ডর্টমুন্ডের হ্যালান্ড-স্যাঞ্চো-রেউস ত্রয়ী। তাতে কোনো লাভ হয়নি। ৭৮ মিনিটে ফ্রেঞ্চ কিংবদন্তী লিলিয়ান থুরামের ছেলে মার্কোস থুরাম মনশেনগ্লাডবাখের হয়ে ৪র্থ গোল করেন। আর এতেই প্রায় ৬ বছর আর ১২ ম্যাচ পর ডর্টমুন্ডকে হারায় মনশেনগ্লাডবাখ।
এই জয়ে বুন্দেসলিগায় ডর্টমুন্ডকে টপকে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৪র্থ স্থানে উঠে এসেছে মনশেনগ্লাডবাখ। আর ডর্টমুন্ড নেমে গেছে ৫ম স্থানে।

Related Post