পিএনজিকে বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে ইতিহাসে অনন্য রেকর্ড গড়লো বাংলাদেশ

গ্রুপের অন্য দুই দলের চেয়ে তুলনামূলক দুর্বলই বলা চলে পাপুয়া নিউগিনিকে। তাদের বিপক্ষেই নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়ের রেকর্ড করে নিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক ওমানের কাছে পাত্তা না পেলেও, স্কটল্যান্ডের সঙ্গে দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণ লড়াই করেছিল পাপুয়া নিউগিনি। আজ (বৃহস্পতিবার) বাংলাদেশের বিপক্ষে ফের মুখ থুবড়ে পড়েছে আসাদ ভালার দল।

সাকিব আল হাসানের স্পিন ঘূর্ণির সঙ্গে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও তাসকিন আহমেদদের বোলিং তোপে ৯৭ রানে থেমে গেছে পাপুয়া নিউগিনির ইনিংস। বাংলাদেশ পেয়েছে ৮৪ রানের বিশাল ব্যবধানে জয়। ম্যাচটিতে আগে ব্যাট করে ১৮১ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ। যা কি না বিশ্বকাপে টাইগারদের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের রেকর্ড। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ঝড়ো ৫০, সাকিব আল হাসানের ৪৬ ও শেষদিকে আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ক্যামিওতে আসে এই সংগ্রহ।

পরে বল হাতে বিশ্বরেকর্ডই গড়েছেন সাকিব। নিজের ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান খরচায় নিয়েছেন ৪টি উইকেট। যার সুবাদে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৩৯ উইকেটের মালিক হয়ে গেছেন সাকিব। তার সমান ৩৯ উইকেট রয়েছে শহিদ আফ্রিদিরও।

সাকিবের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রানে জয়ের নিজেদের রেকর্ড নতুন করে লিখেছে বাংলাদেশ। এতদিন ধরে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয় ছিলো আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। ২০১২ সালে বেলফাস্টে প্রথমে ১৯১ রান করে টাইগাররা জিতেছিল ৭১ রানে।

এছাড়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জয়টি ছিলো ওমানের বিপক্ষে। ভারতের মাটিতে হওয়ার ২০১৬ সালের আসরে ওমানের বিপক্ষে ৫৪ রানে জিতেছিলো বাংলাদেশ। এ দুইটি রেকর্ডই নতুন করে লিখে এবার বাংলাদেশ জিতলো ৮৪ রানে।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জয় ৮৪ রান বনাম পাপুয়া নিউগিনি (২০২১), ৭১ রান বনাম আয়ারল্যান্ড (২০১২)
৬০ রান বনাম অস্ট্রেলিয়া (২০২১), ৫৪ রান বনাম ওমান (২০১৬), ৫১ রান বনাম আরব আমিরাত (২০১৬)

You May Also Like

About the Author: