বিশ্বকাপ শুরুর আগে ধোনির মেন্টর হওয়া নিয়ে মুখ খুললেন কোহলী

আইপিএল দিয়ে ক্রিকেট–বিশ্বকে অনেকটাই নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়েছে ভারত। আর আইপিএলের সুবাদেই দুর্দান্ত এক প্রজন্ম পেয়ে গেছে তারা। বিশ্বের সেরা তারকাদের সঙ্গে একসঙ্গে ড্রেসিংরুমে থাকার সুযোগ পাচ্ছেন ভারতের উঠতি ক্রিকেটাররা।

নিয়মিত চাপের মুখে খেলে এবং এমন তারকাদের সঙ্গে টক্কর দেওয়ার অভ্যাস তাঁদের ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে শেখাচ্ছে। আইপিএলের সুবাদে পাওয়া এই সুবিধা বিশ্বকাপের ক্ষেত্রে অবশ্য কাজে লাগছে না ভারতের। টি-টোয়েন্টিতে দেশটির একমাত্র সাফল্য ২০০৭ সালে। কিন্তু সেটা আইপিএল চালু হওয়ার আগের ঘটনা। এবার সে দুঃখ ঘোচাতে চাইছে ভারত। ঘরের মাঠে বিশ্বকাপের আয়োজনের সুবিধাটা পাচ্ছে না দলটি।

কিন্তু সে ঘাটতি পূরণ করতে অন্য এক উপায় খুঁজে নিয়েছে ভারত। বিশ্বকাপ দলের পরামর্শক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। ২০২০ সালে অবসর নেওয়া ধোনিকে পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এটাই শেষ টুর্নামেন্ট কোহলির। বিশ্বকাপের পরই দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন। নিজের শেষ পরীক্ষায় অন্তত অধিনায়কত্বের ভারটা একটু কম অনুভব করবেন কোহলি।

দলে বিশ্বকাপজয়ী এক অধিনায়কের উপস্থিতি অনেকটাই নির্ভার করে তুলবে পুরো দলকেই। বিশ্বকাপের আগে ১৬ দলের অধিনায়কের সঙ্গে সাংবাদিকদের কথোপকথনের ব্যবস্থা করে দিয়েছিল আইসিসি। আজ সেখানেই কোহলি বলেন, ধোনিকে পেয়ে কতটা খুশি তিনি, ‘যেকোনো দলেই নেতৃত্বের ভূমিকায় তিনি পার্থক্য গড়ে দেন। দলের আবহে তাঁকে পেয়ে খুবই খুশি। নিশ্চিতভাবেই দলের মনোবল আরও বাড়িয়ে দেবেন।’

ধোনিকে পেয়ে কীভাবে দল উপকৃত হবে, সেটাও বলেছেন কোহলি, ‘ম্যাচ কোথায় যাচ্ছে তার জটিল বিশ্লেষণ এবং কোথায় আমাদের উন্নতি করা সম্ভব এমন প্রায়োগিক পরামর্শ, সেটা অন্য কেউ পারেন না। আমাদের সবার জন্য সব সময়ই পরামর্শক হিসেবে ছিলেন। আমরা যখন ক্যারিয়ার শুরু করেছি, তখন তিনি খেলতেন। এখন তাঁর সামনে আবার সে সুযোগ আসছে।

বিশেষ করে তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য, যারা ক্যারিয়ার মাত্র শুরু করেছে।’

You May Also Like

About the Author: