মুস্তাফিজকে নিয়ে কঠিন এক বার্তা দিলেন স্কটল্যান্ড অধিনায়কঃম্যাকলিওড

সংবাদ সম্মেলনের শেষ প্রশ্নটি ছিল ‘মুস্তাফিজুর রহমানকে সামলানোর জন্য স্কটল্যান্ডের পরিকল্পনা কি?’ গোটা সময়টা যেমন, শেষ প্রশ্নেও সেখানেও ঘুরে ফিরে নিজেদের ব্যাটিং সামর্থ্যেরই গুণ গাইলেন ম্যাকলিওড।

“আমরা তার কিছু ভিডিও দেখেছি। সে অবশ্যই বিশ্বের শীর্ষ বোলারদের একজন। তবে আমাদের ব্যাটিং ইউনিটের উপর আমাদের ভরসা রয়েছে যে তারা মুস্তাফিজের জবাবও খুঁজে বের করতে পারবেন।”

আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে আসেননি নিয়মিত অধিনায়ক কাইল কোয়েতজার। এর বদলে এসেছিলেন ম্যাকলিওড। সংবাদ সম্মেলনটা বেশ জমিয়েও তুললেন অভিজ্ঞ এই স্কটিশ ব্যাটসম্যান। বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে বাংলাদেশের বিপক্ষে স্কটল্যান্ডের ম্যাচ রবিবার। দলগত ঐতিহ্য, সাম্প্রতিক ফর্ম ও কন্ডিশন বিবেচনায় বাংলাদেশ এই ম্যাচে পরিষ্কার ফেভারিট। তবে স্কটল্যান্ডের ব্যাটসম্যান নিজেদের থেকে খুব বেশি এগিয়ে রাখতে চাইলেন না বাংলাদেশকে। বলেছেন বাংলাদেশ যদি ভালো খেলে তো স্কটল্যান্ড আরো ভালো খেলতে সক্ষম।

“বাংলাদেশ তাদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিং নিয়ে খেলতে আসছে। সাম্প্রতিক কিছু সিরিজে তাদের বড় দলগুলোর সাথে সাফল্যও রয়েছে। তাই বলাই যায় তারাই একটু এগিয়ে রয়েছে। তবে আমরাও সাম্প্রতিক অতীতে দেখিয়েছি যে, নিজেদের দিনে আমরা বড় বড় প্রতিপক্ষদের চ্যালেঞ্জ জানাতে পারি। পরিষ্কার কথা হলো বাংলাদেশ যদি কাল ‘গুড’ খেলে, আমাদের ‘বেটার’ খেলতে হবে, এবং আমরা তা খেলতে সক্ষম।“

ম্যাকলিওডের এই আত্মবিশ্বাসের মূল কারণ স্কটল্যান্ডের ব্যাটিং সামর্থ্যে অগাধ ভরসা।
“আমাদের একটি শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপ রয়েছে। আমাদের জর্জ মানসি, কাইল কোয়েতজার, রিচি বেরিংটনদের মতো ব্যাটসম্যান রয়েছে। যাদের ব্যাটিং নৈপুণ্যে আমরা সাম্প্রতিক অতীতে আইসিসির পূর্ণ সদস্যদেরও হারিয়েছি। আমার মনে হয় এই টুর্নামেন্টেও আমরা মূল পর্বে কোয়ালিফাই করতে পারবো ও বড় দলদের সাথে লড়াই করতে সক্ষম। এমনকি ও তাদের হারিয়ে দিতেও সক্ষম।”- বলেছেন ম্যাকলিওড

এছাড়াও সহযোগী সদস্যদের সাথে বিশ্বকাপ বাছাইসহ সাম্প্রতিক সময়ে বেশকিছু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট খেলার অভিজ্ঞতা স্কটল্যান্ডকে এগিয়ে রাখবে বলেই মনে করেন এই ৩২ বছর বয়সী।

“সাম্প্রতিক সময়ে আমরা বেশকিছু প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলেছি; এতো ম্যাচ সম্ভবত বাংলাদেশ খেলেনি। এই ম্যাচ খেলার অভ্যেসটা আমাদের কাজে দেবে। এটা আমরা একটা সুবিধা হিসেবে দেখছি।”

বিশ্ব আসরে বড় দলদের সাথে খেলার খুব একটা সুযোগ পায়না স্কটল্যান্ড। এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে তাই বড় দলদের চমকে দেওয়ার উপলক্ষ্য হিসেবে নিতে চান ম্যাকলিওডরা।

“আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য অবশ্যই সুপার টুয়েলভের জন্য কোয়ালিফাই করা। জানি, বাংলাদেশ পাপুয়া নিউগিনি ওমানের মত দলের গ্রুপ থেকে এটি কঠিন হবে। তবে আইসিসি পূর্ণ সদস্যদের বিপক্ষে আমরা খুব বেশি খেলার সুযোগ পাইনা। তবে সুযোগ পেলে যে আমরা তাদের বিপক্ষে ভালো করতে পারি, সাম্প্রতিক অতীতে তা আমরা দেখিয়েছি। আমার মনে হয় এই টুর্নামেন্টেও আমরা মূল পর্বে কোয়ালিফাই করতে পারবো ও বড় দলদের সাথে লড়াই করতে পারবো।“

এমনিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে স্কটল্যান্ডের ‘শতভাগ’ জয়েরই রেকর্ড টি-টোয়েন্টিতে। ২০১২ সালে একটি ম্যাচেই মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল, যাতে জিতেছিল স্কটল্যান্ড।

You May Also Like

About the Author: