রাজস্থানকে গুড়িয়ে দিয়ে প্লে অফের আরো কাছে কলকাতা দেখুন হিসাব নিকাশ

রাজস্থান রয়্যালসকে মাত্র ৮৫ রানে অল আউট করে ৮৬ রানের জয়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) প্লে অফের আশা বাঁচিয়ে রাখলো কলকাতা নাইট রাইডার্স। ১৪ ম্যাচে পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে ইয়ন মরগানের দলের অবস্থান ৪ নম্বরে। ১৩ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে ৬ নম্বরে রয়েছে মুম্বাই।

প্লে অফ নিশ্চিতের জন্য তাই মুম্বাই সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ম্যাচের দিকে নজর রাখতে হবে কলকাতাকে। মরগানদের দেয়া ১৭২ রানের বিশাল লক্ষ্যে খেলতে নেমে প্রথম ওভারেই সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণির মুখে পড়ে রাজস্থান। দলটির ওপেনার ইয়াসভি জায়সাওয়ালকে তৃতীয় বলেই বোল্ড করে ফেরান এই টাইগার তারকা। সেই ওভারে তিনি খরচা করেন মাত্র ১ রান। এরপর যদিও সাকিবকে বোলিংয়ে না এনে বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছেন কলকাতার অধিনায়ক মরগান।

দ্বিতীয় ওভারে রাজস্থান অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসনকে মাত্র ১ রানে ফেরান শিভম মাভি। তৃতীয় ওভারে এসে কিউই পেসার লকি ফার্গুসনের জোড়া আঘাতে বিপর্যয়ে পড়ে রাজস্থান। তিনি দ্রুত ফেরান লিয়াম লিভিংস্টোন (৬) ও অনুজ রাওয়াতকে (০)। এই বিপদ থেকে আর ঘুড়ে দাঁড়াতে পারেনি রাজস্থান। মাভি নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এসে গ্লেন ফিলিপসকে বোল্ড করে ফিরিয়েছেন। একই ওভারে ১৮ রান করা শিভম দুবেকেও বোল্ড করেন কলকাতার এই পেসার।

পরের ওভারে রানের খাতা খোলার আগেই ক্রিস মরিসকে এলবিডব্লিউ করেন বরুণ চক্রবর্তী। ফার্গুসনের ওপর চড়াও হতে গিয়ে ব্যক্তিগত ৬ রানে সাকিবের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন জয়দেব উনাদকাট। চেতন সাকারিয়া শেষ দিকে মাত্র রান করে রান আউট হন সাকিবের দারুণ থ্রোতে। একপ্রান্ত আগলে রাখা ৩৫ বলে ৪৪ রান করা তেওয়াতিয়াকে বোল্ড করে রাজস্থানের ইনিংসের ইতি টেনেছেন মাভি। আর তাতেই ক্যারিয়ার সেরা ২১ রানে ৪ উইকেটের পরিসংখ্যান গড়েন কলকাতার এই পেসার।

এই ম্যাচে টসে জিতে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন রাজস্থান দলপতি স্যামসন। ব্যাটিংয়ে নেমে কলকাতাকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার শুভমান গিল ও ভেঙ্কটেস আইয়ার। এই দুজনে যোগ করেন ৭৯ রান। আইয়ার ৩৫ বলে ৩৮ রান করে রাহুল তেওয়াতিয়ার শিকার হন। এরপর নিতিশ রানা বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। তার ব্যাট থেকে আসে মাত্র ১২ রান। একপ্রান্ত আগলে রাখা গিল হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ফেরেন ৫৬ রান করে।

এরপর রাহুল ত্রিপাঠির ১৪ বলে ২১, দীনেশ কার্তিকের ১১ বলে অপরাজিত ১৪ ও অধিনায়ক ইয়ন মরগানের ১১ বলে অপরাজিত ১৩ রানে ১৭১ রানের বড় পুঁজি পায় কলকাতা। টাইগার পেসার মুস্তাফিজুর রহমান ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে ছিলেন উইকেট শূন্য।

You May Also Like

About the Author: