বন্যার পানিতে তলিয়ে গেল রাস্তা, সেখানে জাল ফেলতেই ধরা পড়ল প্রচুর মাছ, তুমুল ভাইরাল ভিডিও!

প্রাচীন কাল থেকেই মানুষ খাদ্য ও আমিষের চাহিদা পূরণ করতে অন্যতম পরিপূরক হিসেবে মাছ শিকার করে খেয়ে আসছে। মাছ অতি সহজ লভ্য ও পুষ্টির এমন একটি ভান্ডার । যার দ্বারা একজন মানব শরীরের পুষ্টি চাহিদা পূরণ করা যায়। মাছের বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান যা বেড়ে উঠতে অনেক সাহায্য করে। অনেকের কাছে মাছ শিকার করা একটি নেশার মতো।

মাছ শিকার করা যেমন মজার তেমনি এর মাধ্যমে পারিবারিক পুষ্টি চাহিদা সহ রোজগার ও করা যায়। মাছ ধরা এক ধরনের প্রতিভা। সকলেই মাছ শিকার করতে পারে না। সময়ের ব্যবধানে ও উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে মাছ শিকার সহজ হলেও। গ্রামীণ ও প্রাচীন পদ্ধতি গুলো মাছ শিকার করার কিছু সহজ মাধ্যম । গ্রাম্য পদ্ধতিতে মাছ শিকার করতে এক ধরনের ধৈর্যের পরীক্ষা হয়। অঞ্চলভেদে বিভিন্ন জায়গায় মাছ শিকার করার একক পদ্ধতি বিদ্যমান।

সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে আমরা বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন মাছ ধরা ও তাদের ঐতিহ্য সহকারে মাছ ধরা দেখতে পারি। এই সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের অন্যদের প্রাচীন পন্থা ও তাদের অবস্থান সম্পর্কে জানতে সাহায্য করে। শুরুর দিক সোশ্যাল মিডিয়া শুধু মাত্র যোগাযোগের মাধ্যম হলেও । বর্তমানে নানান জনের নানান ভিডিও আপলোডের মাধ্যমে সহজেই আমরা জানতে পারি ।

তেমনি মাছ শিকার,রান্না ও বর্তমানের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আমরা এই সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা ,সমালোচনা দেখতে পাই। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি মাছ ধরার ভিডিও ভাইরাল হয় । যা অল্প সময়ের মধ্যে সকলের কাছে অনেক গ্রহণযোগ্যতা পায়। এই ভিডিওটিতে দেখা মাছ ধরার কৌশল টি অনেক আগে থেকে বিদ্যমান । যাতে করে অল্প কিছু সময়ের মধ্যে অনেক মাছ ধরা যায়।

ভিডিওটিতে দেখা যায় ,একজন লোক বন্যার পানিতে জাল ফেলে রাখে । অল্প সময়ের পরে সে যখন তার সেই জলের কাছে ফিরে আসে । জল উঠানোর পর দেখতে পায় সেখানে অনেক মাছ। মূলত যাদের মাছ ধরার প্রচুর নেশা তারা মাছ ধরতে রাতের বেলা বেছে নেয়। কারণ রাতের বেলা পানিতে আলো ফেলে সহজেই মাছ ধরা যায়। তেমনই দেখা যায় ভিডিওটি পুরো দেখা যায় দিনের মত ঠিক রাতেই লোকটি পানিতে জাল বিছিয়ে রাখে।

ঠিক আগের থেকেও বেশি মাছ এবার তার জলে উঠে। এভাবে মাছ ধরার জন্য খুব বেশি উপকরণ লাগে না। আবার মাছ ধরার জন্য অনেক কষ্ট করতে হয় না। প্রয়োজন হয় শুধু একটু সময় ও ধৈর্যের। বিশেষত বন্যার নতুন পানি যখন আসে সেখানে মাছের বিচরণ আরো বেশি হয়। এই ভিডিওটি অল্প সময়ের মধ্যে অনেক বেশি ভাইরাল হয়। সকলেই ভিডিওটি নিয়ে অনেক মন্তব্য করে যা ছিল অবাক করার মতো।

You May Also Like

About the Author: