পিএসজিতে প্রথম মৌসুমেই ৪০০ মিলিয়ন ইউরো আয় নেইমারের!

২০১৭ সালে বার্সেলোনা ছেড়ে ২২২ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফারের রেকর্ড গড়ে প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) যোগ দেন নেইমার। আর পার্ক দে প্রিন্সেসে প্রথম মৌসুমেই ৪০০ মিলিয়ন ইউরো আয় করেছেন নেইমার।

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’র এক রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, বার্সেলোনা ছেড়ে প্যারিসে যাওয়ার পর প্রথম মৌসুমেই নেইমারের পকেটে ঢুকেছে ৪০০ মিলিয়ন ইউরো।

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

মূলত তার তুমুল জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে বিভিন্ন বিখ্যাত ব্রান্ড পিএসজির সঙ্গে চুক্তি করেছে। সেখান থেকেই এসেছে বিপুল পরিমাণ অর্থ। যার একটা বড় অংশ গেছে নেইমারের অ্যাকাউন্টে।
পিএসজির সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তি অনুযায়ী, প্যারিসে নিজের প্রথম মৌসুমে মাসিক ৪ লাখ ৩০ হাজার পাউন্ডের বোনাস পান নেইমার। গত মে মাসে ফরাসি জায়ান্টদের সঙ্গে আরও পাঁচ বছরের জন্য চুক্তি করেছেন তিনি। এই নতুন চুক্তিতে নেইমারের বাৎসরিক আয় দাঁড়াবে ৫০ মিলিয়ন ইউরো।

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

চুক্তির আর্থিক দিকটি প্রকাশ্যে আসার পর এর স্বপক্ষে যুক্তি দাঁড় করিয়েছিল পিএসজি। তাদের দাবি, নেইমারের সঙ্গে চুক্তি ছিল তাদের জন্য বড় বিনিয়োগের মতো। ক্লাবের প্রেসিডেন্ট নাসের আল খেলাইফি চুক্তি স্বাক্ষরের পর বলেছিলেন, ‘যা খরচ করেছি নেইমারের কাছ থেকে আমরা তার চেয়ে বেশি আয় করব। ’

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

পিএসজির অফিসিয়াল শপগুলো নেইমারের জার্সি তোলার মাত্র দুই ঘণ্টার মধ্যেই প্রায় অর্ধ মিলিয়ন ইউরো আয় করেছিল। ক্লাবের পক্ষ থেকে পরে স্বীকার করা হয়েছিল, ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে না পেলে ইতালিয়ান ব্র্যান্ড রিপ্লে কিংবা নাইকির সঙ্গে বিশাল অঙ্কের চুক্তি সম্ভব হতো না। তাছাড়া নেইমার না থাকলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে পিএসজির ফলোয়ার সংখ্যাও আকাশ ছুঁতে পারতো না।

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

নেইমার পিএসজিতে যাওয়ার পর প্রথম মৌসুমে ফরাসি লিগ ওয়ানের দর্শক সংখ্যা ২৫ শতাংশ বেড়ে গিয়েছিল। এমনকি ব্রাজিলে লিগ ওয়ানের খেলা সম্প্রচারের ঘোষণা দেয় ডিজনি চ্যানেল। যা আগে ইএসপিএন ও ফক্স স্পোর্টস সম্প্রচার করতো।

GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht
GLeZpht

প্যারিসের সংবাদমাধ্যমগুলোর দাবি, নেইমারের আগমনের কারণে পিএসজি বিশ্বের দ্বিতীয় লাভজনক ক্লাবে পরিণত হয়েছে। এমনকি নেইমারের কারণেই পিএসজি বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ক্লাবের তালিকায় শীর্ষ পাঁচে জায়গা করে নিয়েছে। এসব কারণেই ব্রাজিলিয়ান তারকাকে কিছুতেই হাতছাড়া করতে চায় না প্যারিসিয়ানরা। এরইমধ্যে নতুন চুক্তিও স্বাক্ষর হয়ে গেছে।